Bangla অভিশপ্ত ডায়েরি | Ovishopto Diyeri
Views 259
Replies 89
Thread Rating:
  • 0 Vote(s) - 0 Average
  • 1
  • 2
  • 3
  • 4
  • 5

[-]
Tags
অভিশপ্ত ডায়েরি diyeri ovishopto

Users browsing this thread: 1 Guest(s)
Thread Description
Bangla Voutik Choti Adult Uponnas
#11
পর্ব ৯- স্মৃতিচারণ ২

সুবীরবাবু শুয়ে পরেছেন এখন ঘরে জীবন্ত প্রাণী বলতে দুজন, মালতী দেবি ও মানব বাবু। ভেতরের ঘরে মালতী দেবীর দুই মেয়ে ঘুমাচ্ছে। এদিকে মানব বাবু আবার নতুন করে পেগ বানাতে শুরু করলেন। এবারের পেগ গুলো খুব কড়া করে উনি বানাচ্ছেন কারন লিটার এর বোতল তার ৭৫% এখনো বাকি আছে। এক চুমুক মুখে দিয়ে মানব বাবু বলে উথলেন
মানব বাবুঃ বউদি তোমার মনে পরে পুরনো কথা গুলো। তোমাদের বিয়ে হওয়া তারপর সুবীরের এই লড়াই। জানতো আমি আমার সব বন্ধুদের বলি সুবীর কি, সুবীর কি করেছে।
মালতী দেবি মানব দার গলার আওয়াজ শুনেই বুঝতে পারছে যে এবার মানব দার নেশা হওয়া শুরু হয়েছে। একটু হেসে মালতী দেবীও জবাব দিলেন।
মালতী দেবীঃ হা মানব দা সত্যি ও কিছু লড়াই করেছে। তবে তোমায় ছাড়া ও কিছুই নয়। তোমার উপকার সারা জীবন আমরা দুজনে মনে রাখব।
মালতী দেবি মানব বাবুর দিকে তাকিয়ে দেখে ওর চোখ দুটো ছল ছল করছে। এতক্ষনে মালতী দেবি বোঝেন মদ্যপ মানব দার সামনে এই টপিক তা না ওঠালেও পারত।
মানব বাবুঃ বউদি তুমি ও। সবাই একথা বলে ওকে খাটো করে তুমি অন্তত বলনা। ওকে আমি সম্মান কড়ি। ওর জন্য সামান্য যা করেছি তা আমার গর্বের।
মালতী দেবীঃ হা এটা সত্যি ওর লড়াই আছে মেরিট আছে। কিন্তু মানব দা সব সত্যি হয়েছে তোমার মতো বন্ধুর পাশে থাকার জন্য।
এর মধ্যেই মানব দার ২ পেগ আরও শেষ হয়ে গেলো। মালতী দেবী বুঝতে পারছেন খুব অল্প জল দিয়ে খুব দ্রুত মানব দা মদ খাচ্ছেন, এতোটা মদ খাবে ও যেকোনো সময় ই শরীর খারাপ করতে পারে।
মালতী দেবীঃ আরে মানব দা প্লিজ একটু সাবধানে খাও, আজ এত গরম শরীর খারাপ করতে পারে।
মানব বাবুঃ না বউদি আজ আমায় খেতে দাও। আমি আজ অনেক চেপে রাখা কথা তোমায় বলতে চাই।
মালতী দেবীঃ তা বোলো। তোমার মনের কথা গুলো শুনব বলেই তো আমি তোমার সাথে বসেছি।
মানব বাবুঃ বউদি আমার প্রচুর কষ্ট, আমার কেউ নেই পৃথিবীতে। আমি আমার মনের কথা গুলো কাউকেই বলতে পারিনা।
এটা বলেই মানব বাবু হাউ হাউ করে কাঁদতে শুরু করে দিলেন। মালতী দেবী এক মুহূর্তের জন্য ঘাবড়ে গেলেন কিন্তু উনি জানেন কিভাবে অন্য কে সহানুভুতি দিতে হয়। উনি আসতে আসতে সরে গিয়ে একদম মানব বাবুর পাশে বসলেন। মানব বাবুর মাথায় হাত দিয়ে ওনাকে সহানুভুতি দিতে শুরু করলেন।
মালতী দেবীঃ কি হয়েছে মানব দা। এটা কোন মানব দা। আমি ভাবলাম তুমি বুঝি ইয়ার্কি করে হাসিয়ে হাসিয়ে আমার পেট ফাটিয়ে দেবে। আর কেউ নেই মানে আমরা কি তোমার পর নাকি। কখনো তোমায় আমরা পর ভেবেছি কি।
এই সহানুভুতির চোটে মানব বাবু নিজেকে আরও হারিয়ে ফেললেন। হথাত করে নিজের মাথাটা মালতী দেবীর বুকে চেপে ধরে পাগলের মতো করে কাঁদতে শুরু করলেন। মালতী দেবীর খুব খারাপ লাগছিল। সত্যি ই খারাপ লাগার ই কথা যে মানুষ তা ওদের জন্য এত করেছে সেই কিনা ওর সামনে কাঁদছে। মালতী দেবী ওনার মাথায় হাত বোলাতে লাগলেন। আর যত উনি হাত বোলাতে লাগলেন মানব বাবু ততই মাথা নাড়তে লাগলেন। এবার মালতী দেবী বুঝলেন একটা বিশাল ভুল হয়ে গেছে। কিছুক্ষন আগে উনি মেয়েদের বুকের দুধ খাইয়ে এসেছেন, ব্লউজ এর ওপরের হুক তা বন্ধ করতে ভুলে গেছেন। মানব বাবুর ঠোঁট দুটো ওনার দুপাশের দুটো দুধে ঘোরাফেরা করছে, তাই ওনার শরীরে এই শিহরন তা হচ্ছে। উনি মহা বিপদে পরেছেন, নীচের দিকে তাকিয়ে দেখেন বুকের সাড়ী তা খুলে কোমরের কাছে পরে গেছে। সত্যি ই খুব লজ্জার ঘটনা। মনে মনে নিজেকে দোষারোপ করতে শুরু করলেন আর ভাবলেন যেভাবে হোক মানব বাবুকে শান্ত করতে হবে। যতই হোক উনি একটা সামর্থ্য পুরুষ মানুষ এভাবে গোপন স্থানে ওর স্পর্শ খুব বিপজ্জনক ব্যাপার।
মালতী দেবীঃ এবার কিন্তু আমি তোমায় বকবো মানব দা। আমি আগে বলেছি মদ কম খাবে। কি তোমার বয়স বলত। মদ খাওয়ার এত কি আছে। এভাবে মদ খেয়ে মন খারাপ করবে তা কি আমার ভালো লাগে তুমি বল।
মানব বাবু এবার উঠে বসলেন আর মালতী দেবি ও সাথে সাথে সাড়ী তা তুলে নিয়ে বুক তা ঢাকা দিলেন।
মানব বাবুঃ আমি মদ খেয়ে মাতলামি করছি না বউদি। এগুলো আমার মনের কথা আমি তোমায় বলতে চাই।
মানব বাবু আবার একটা হার্ড পেগ বানালেন।
মালতী দেবীঃ তোমার কষ্ট তা আমি বুঝি। কিন্তু এটা জানতো মদ খেলে মানুষের হুঁশ থাকেনা। তুমি সব বল কিন্তু এখন নয় কাল সকালে।
মানব বাবুঃ কি বলছ বউদি, এই এত কাদলাম তোমার কাছে সব ই কি মদ খাওয়ার জন্য। আমার কি তারমানে কোনও কষ্ট নেই।
মালতী দেবীঃ আমি সেটা বলিনি মানব দা, তুমি ভুল বুঝেছ আমায়।
মানব বাবুঃ আজ যদি তুমি মদ খেতে তোমার মুখ দিয়েও এরকম অনেক কথা বেরিয়ে যেত আমি কখনই এড়িয়ে জেতাম না। তুমি আমার কথা গুলো শুনে আমায় দয়া করেছ তো। ঠিক আছে আমি চাই তুমিও আমার সাথে মদ খাও আর তোমার মনের কথা আমায় বল। তাহলেই হিসেব বরাবর।
মালতী দেবীঃ কি বলছ মানব দা। তুমি জানো ও জানলে কত রাগারাগি করবে। এরকম অনুরধ প্লিজ করোনা। তোমার জন্য আমি বা ও মরতেও পারি। তোমার যেকোনো কথা মানতে আমরা রাজী কিন্তু প্লিজ একটু নিজে ভাবো।
মানব বাবুঃ বাহ সেই চলে এল তোমাদের সংসার, তুমি ও সুবীর। সত্যি ই বউদি আমি আলাদা। তুমি আমায় আজ এটা বুঝিয়ে দিলে যে আমি আলাদা।
মানব বাবু কথা গুলো নেশার ঘোরে বললেও কথা গুলো ভীষণ ভাবে মালতী দেবীর বুকে গিয়ে বিঁধছে। সত্যি ই তো যদি এই নিঃসঙ্গ মানুষ তা চায় ওর সাথে বন্ধুর মতো বসে সঙ্গ দি। ওর মতো করে কথা বলি তা কি অন্যায়। জীবনে এমন অনেক ভুল মানুশকে জেনে বুঝে করতে হয় যা শুধুই কর্তব্য পালনের জন্য। এক মুহূর্তের জন্য ভেবে নেন মালতী দেবী।
মালতী দেবীঃ খেতে পারি একটাই শর্তে তোমার বন্ধু যেন কোনদিন ও জানতে না পারে।
মানব বাবু কোনও উত্তর ই দেন না, শুধু আরেকটা গ্লাস এ মদ ঢেলে পেগ বানান। আর গ্লাস তা মালতী দেবীর দিকে এগিয়ে দেন। মালতী দেবী মন শক্ত করে গ্লাস তা ধরে একটা চুমুক দেন। হথাত করেই চারপাশে একটা বিশ্রী রকম নীরবতা নেবে আসে। মালতী দেবী গ্লাসে চুমুক দিতে দিতে মানব বাবুর দিকে তাকান। মানব বাবু একদৃষ্টিতে ওর দিকে চেয়ে আছে। মালতী দেবী এর আগে কখনই মদ খান নি, তাই প্রচণ্ড নার্ভাস হয়ে ঘামতে শুরু করেন। একটা গ্লাস শেষ হয়, মালতী দেবী গ্লাস তা নিচে নামিয়ে রাখেন। সাথে সাথে মানব বাবু গ্লাস তা তুলে নেন। আবার একটা পেগ এটা অনেক অনেক বেশি হার্ড। মালতী দেবী মুখে কিছুই বলতে পারছেন না। নতুন পেগ টায় চুমুক দিতেই গা তা কেমন যেন করে ওঠে মাথাটা ঝিম ঝিম করে। ৩-৪ চুমুক দেওয়ার পর উনি মুখ তুলে তাকান দেখেন মানব বাবুর বুকের সব গুলো বোতাম ই প্রায় খোলা। বুকের কালো লম্বা চুল গুলো বাইরে বেরিয়ে এসেছে। কিন্তু কেন ওর নজর ওদিকেই যাচ্ছে এর আগে বহুবার ও মানব দাকে খালি গায়ে দেখেছে। কিন্তু এরকম কোনও অনুভব ওর হয়নি। উনি আরও ২-৩ চুমুকে গ্লাস তা শেষ করে দিলেন। এবার আর নিচে রাখার সময় টুকুও পেলেন না মালতী দেবী। মানব বাবু ওর হাত থেকে গ্লাস তা টেনে নিয়ে নিজের একটা আর মালতী বউদির একটা পেগ বানালেন। মালতী দেবী জানেন এটাই শেষ কারন বোতল তা ফাঁকা। যেভাবে হোক এটাকে শেষ করে ফেলেই উঠে যেতে হবে। উনি খুব জোরে একটা চুমুক দিলেন। এবার মাথাটা ঝিম ঝিম করতে লাগলো আর মাটিতে বসে বসেই উনি টলতে লাগলেন। উনি আবার একবার তাকালেন মানব বাবুর দিকে। মানব বাবুর শরীরটা আজ ওনার কাছে অন্যরকম লাগছে, মনে মনে বললেন প্রচুর নেশা হয়ে গেছে এই মুহূর্তেই একবার ভালো করে স্নান করতে হবে নয়ত শরীর খারাপ করবে। হথাত ই ওনার চোখ পড়ল মানব বাবুর চোখে। নেশার ঘোরে ভাবছেন নাকি এটা সত্যি তা উনি জানেন না তবে মালতী দেবীর মনে হোল মানব দার চোখটা ওনার বুকের ওপর। উনি একবার নীচের দিকে তাকালেন হা সত্যি ই কখন ওনার সাড়িটা বুক থেকে সরে গেছে তা উনি খেয়াল ই করেন নি। কিছুটা ঝুকে বসেছিলেন আর তাতে যা হয়ার তাই হয়েছে বুকের অনেক তা অংশই বাইরে বেরিয়ে এসে গেছে। মালতী দেবী আবার একবার মানব বাবুর দিকে তাকালেন। হা সত্যি ই উনি মালতী দেবীর ঝুকে পড়া দুধ দুটোর দিকেই তাকিয়ে আছেন। কোনরকমে সাড়ী তা কে ওপরে তুলে উনি বুক তা ঢাকা দিলেন। আবার মানব বাবুর দিকে তাকালেন আর লক্ষ্য করলেন উনি মুচকি মুচকি হাসছেন। মালতী দেবীর ভীষণ বিরক্ত লাগলো। এত চেনা মানব দাকে আজ কেন জানিনা ওনার খুব অচেনা লাগছে। বা এটাও হতে পারে নেশার ঘোরে ভুল ভাবছে ভুল বুঝছে। ওকে সবার আগে একবার স্নান করতে হবে নেশা তা কাটানোর জন্য। ঠিক এই সময় হথাত করে একটা লোড শেডইং। ওই সময় কলকাতায় প্রচণ্ড কারেন্ট অফ হত। আর এর জন্য মালতী দেবী দুটো সুযোগ পেলেন। প্রথম তা হোল এই বিশ্রী নীরবতা তা ভেঙ্গে দেওয়া। উনি বলে উথলেন
মালতী দেবীঃ মানব দা তুমি একটু বস আমি হ্যারিকেন তা জ্বালিয়ে নিয়ে আসছি।
কোনরকমে টলতে টলতে মালতী দেবী বাইরে বেরলেন। আর মনে মনে বললেন খুব ভালো হয়েছে, এবার এখান থেকে ওঠা গেলো।


Reply
#12
পর্ব ১০- স্মৃতিচারণ ৩
কোনরকমে হ্যারিকেন তা জ্বালিয়ে মালতী দেবী আবার ভেতরে ঢুকলেন। এবার অন্তত প্রায় আধ ঘণ্টা পর মানব বাবু বলে উঠলেন
মানব বাবুঃ তুমি কি জানো বউদি কেন আমার মন এত চঞ্চল আজ? কেন আমি এভাবে ভেঙে পরলাম?
মালতী দেবীঃ কেন আমায় বল প্লিজ?
মানব বাবুঃ না থাক অন্য একদিন ই বরং তোমায় বলব।
মালতী দেবী আর বেশি ঘাঁটালেন না মানব দাকে। ওনার আর সত্যি ই ভালো লাগছিল না। মনব বাবু আর সুবীর বাবু এততাই মদ খেয়েছে যে আজ আর ওরা কিছু খাবেনা তা উনি জানেন। ওনার ও প্রচণ্ড ঘুম পাচ্ছে। আর নেশা তা ওনার ও কম হয়নি। ঠিক করে হাঁটতে পারছেন না। এই মুহূর্তে একবার স্নান করে শুয়ে পড়া উচিৎ। আর খুব ভালো হয়েছে কারেন্ট চলে গিয়ে। ওদের বাড়ীতে সেই সময় বাথরুম ছিলনা তাই স্নান করতে হলে কুয়পারেই করতে হবে। কারেন্ট না থাকায় অন্ধকারে সাচ্ছন্দে ও স্নান করতে পারবে।
মালতী দেবীঃ মানব দা তুমি সুয়ে পর এখানে বিছানা তো করাই আছে আমি স্নান করে শুয়ে পরবো। আর কোনও উলটো পাল্টা কিছু ভেবনা। নিজেকে একা ভাববে না কেমন। মনে রেখো আমরা সবসময় তোমার পাশেই আছি।
রুম থেকে বেরোনোর সময় মালতী দেবী একবার পেছন ঘুরে মানব বাবুর দিকে তাকালেন। মানব বাবুর একটা হাত ওনার বুকের ভেতরে, আলতো করে উনি নিজের বুকে হাত বোলাচ্ছেন আর অত্যন্ত বিশ্রী ভাবে মালতী দেবীর দিকে তাকিয়ে মিটিমিটি হাসছেন। এই হাসি, এই নজর, এই অচেনা দৃষ্টি মালতী দেবীর শরীরটাকে কেমন যেন নাড়িয়ে দিল একবার। কে যেন ভেতর থেকে এক নাগাড়ে বলে চলেছে – সাবধান মালতী, সাবধান, ঘরে পর পুরুষ রয়েছে সাবধান। মালতী দেবী সমস্ত কিছুর দায় পেটে পড়া কয়েক পেগ মদের ওপর চাপিয়ে আসতে আসতে হ্যারিকেন তা উঠিয়ে রুম এর বাইরে বেরলেন। কুয়পারে গিয়ে হ্যারিকেন টাকে এক কোনায় রাখলেন আর বালতি টে জল ভরতে শুরু করলেন। হ্যারিকেন এর আলো খুব মৃদু হলেও উঠোন তা মোটামুটি পরিষ্কার ই দেখা যাচ্ছিল। জল ভরা হয়ে গেলে উনি একবার আবার বারান্দার সামনে এলেন, ভেতর তা ঘুটঘুটে অন্ধকার, ভেতরের ঘর গুলো থেকে সামান্য কোনও শব্দই আসছেনা। মালতী দেবী বোকার মতো এটাই ভেবে নিলেন যে মানব বাবু ঘুমিয়ে পড়েছে। ওনার ও মাথা ঠিক থাক কাজ করছেনা, শরীরে মাদকতা। উনি আসতে আসতে আবার কুয়ো পারে এগিয়ে গেলেন এবং এক এক করে সাড়ী সায়া ব্লাউজ সব কিছু খুলে দড়ি টে টাঙিয়ে দিলেন। গায়ে জল ঢালার আগে একবার নিজের ওই যৌবনরস এ ভরপুর শরীর টায় হাত দিলেন। ওনার কি হচ্ছে তা উনিও বুঝতে পারছেন না। আজ নিজের স্পরশেও শরীরে আগুন জ্বলে যাচ্ছে। একবার ভাবলেন মানব দা সত্যি ই ঘুমিয়ে পড়েছে তো। পেছন ঘুরে আবার একবার দেখলেন, ভেতরটা ঘুটঘুটে অন্ধকার। আর এই কালো অন্ধকারময় রাতে একমাত্র দৃশ্যমান কুয়ো পাড়, বালতি আর অবশ্যই সদ্য যুবতী হওয়া এই ২২ বছরের শরীর তা। আর কিছু ভাবতে ওনার ইচ্ছে হলনা। মগে করে জল তুলে মাথায় ঢালতে শুরু করলেন। জলের ছম ছম আওয়াজে আপাত শান্ত ও ঘুমিয়ে পড়া ঘরটা আবার জেগে উঠল। দায়সারা ভাবে এক বালতি জলে কোনরকমে স্নান করে নিয়ে উনি বা হাত তা ওপরে তুলে গামছা তা পারলেন, মিনিট ২-৩ এর মধ্যেই ওনার গা মোছা হয়ে গেলো। একবার ভিজে কাপড় গুলোর দিকে তাকিয়ে ভাবলেন আজ থাক কাল সকালে এগুলো কেচে নেব, আজ ঘুমিয়ে পড়ি। গামছা তা ভালো করে গায়ে জড়িয়ে এক হাতে হ্যারিকেন তা তুলে উনি চললেন বারান্দার দিকে। হ্যারিকেন তা একটু উঁচু করে ধরতেই দেখলেন বারান্দার ঠিক ওপরে দাঁড়িয়ে এক মানুষ। মালতী দেবীর বুক তা ছ্যাঁত করে উঠল। উনি জানেন এটা মানব দা। মুহূর্তের মধ্যে নিজের মনটা শক্ত করে উনিও বারান্দার দিকে এগিয়ে গেলেন। উনি খুব ভালো করেই জানেন এই ছোট গামছা তা ওর শরীরের তুলনায় নগন্য। পরপুরুষের সামনে এই গামছা তা পরে যাওয়ার যে কি লজ্জা তা হয়ত কোনও নারী ই বোঝে। মালতী দেবী আসতে আসতে বারান্দায় উঠলেন, মানব দার দিকে না তাকিয়ে ওনাকে দেখতে না পাওয়ার ভান করলেন এবং আসতে আসতে নিজের রুম এর দিকে যেতে শুরু করলেন। হথাত মানব বাবু বলে উঠলেন
মানব বাবুঃ বউদি জানো কেন আমি এত ভেঙে পরেছিলাম?
মালতী দেবী শুধুই দাঁড়িয়ে পরলেন। কিন্ত কোনও উত্তর ই দিলেন না। মানব বাবু আবার বলে উঠলেন
মানব বাবুঃ লোকে বলে আমার চরিত্র খারাপ। আমি তোমাদের জন্য যা করেছি তা শুধুই নিজের জন্য।
এই কথার মানে মালতী দেবী বোঝেন। উনি জানেন এই মাতাল কে আর সত্যি ই ঘাঁটানো উচিৎ নয়। উনি পেছন ঘুরে মানব দার দিকে তাকিয়ে বললেন
মালতী দেবীঃ মানব দা, আমার শরীর তা ভালো লাগছেনা। আজ বরং ঘুমিয়ে পড়ি। কাল সকালে আবার কথা বলব।
মালতী দেবী নিজের রুম এ ঢুকে দরজা বন্ধ করে দিলেন। বেশ কিছুক্ষন মানব বাবু ওখানেই দাঁড়িয়ে থাক্লেন তারপর উনিও নিজের রুম এ ঢুকে গেলেন। সেদিন রাতে মালতী দেবী ঘুমাতে পারেন নি, বারবার নিজেকে পাপী মনে হয়েছে। বহুবার নিজেকে এটা বলার চেষ্টা করেছেন যে মানব দা অনেক অনেক পরে বারান্দায় এসেছে, ও কিছুই দেখেনি। কিন্তু যুক্তি ও বাস্তব বিশ্বাস কে হারিয়েই দিয়েছে। এই ঘটনা তা বিচ্ছিন্ন কিছু নয়, বরং বলা যায় এটা মানব বাবুর নিপীড়নের শুরু। আজ এক এক করে অনেক গুলো পুরনো ঘটনা মালতী দেবীর মনে পরে যাচ্ছে। আর এই ঘটনা গুলো যতবার ই মনে পরে ওনার প্রচণ্ড লজ্জা হয় আর নিজের স্বামীর ওপর রাগ হয়।
ওদিকে অন্য ঘরটায় সুবীর বাবু ও ড্রেস পড়তে পড়তে বহু পুরনো ঘটনা ভাবছিলেন। মালতী দেবী যে একাই সব জানেন তা নয়, সুবীর বাবু ও অনেক কিছু জানেন। বহু কষ্টে সুবীর বাবু নিজের মনকে শান্ত করে বোঝানোর চেষ্টা করেন নিজেকে এখন এসব ভেবে কি লাভ এগুলো তো অতীত। আর এখন তো মানবের উৎপাত নেই বললেই চলে, সেই ৩ মাস আগে একবার এসেছিল তাও ২ ঘণ্টার জন্য। মনে মনে ভাবেন যৌবন কালে সবার ই এরকম একটু উগ্রতা থাকে, মালতী আমার স্ত্রী হলেও এটা সত্যি যে অত্যন্ত আকর্ষণীয় ও সুন্দরী মহিলা। ওর প্রতি যেকোনো পুরুষের ই আকর্ষণ খুব স্বাভাবিক। যদি মানব তা ঠিক সময় বিয়ে করে নিত হয়ত এত প্রবলেম হতনা। আর এটা সত্যি যে ও কিন্তু কোনদিন ই আমাদের কোনও ক্ষতি করেনি, শুধু দিয়েই গেছে। হয়ত পাশের ঘরে মালতী দেবীর যুক্তি গুলো ও এক। ওরা দুজনেই নিজেকে শান্ত করে।
সুবীর বাবুঃ মালতী আমি বাজারে যাচ্ছি, বাড়ীর জন্য কিছু আনতে হবে কি?
মালতী দেবীঃ হা বাড়ীতে আলু নেই, তুমি বরং ২ কিলো আলু নিয়ে এস।
সুবীর বাবু তাড়াতাড়ি বাজারের ব্যাগ তা নিয়ে বাজারে যেতে উদ্দত হলেন। একবার চেঁচিয়ে বলে দিলেন “মালতী দরজা তা বন্ধ করে দিয়ো আমি বাজারে যাচ্ছি” সুবীর বাবু দরজা তা খুলতেই বাইরে দেখেন মানব বাবু দাঁড়িয়ে। প্রথম এ ওনাকে দেখে সুবীর বাবু একটু ঘাবড়েই যায়। মুহূর্তের মধ্যে নিজেকে সামলে নিয়ে মানব বাবুকে জড়িয়ে ধরেন।
মানব বাবুঃ কি রে শালা এতদিন বাদে বন্ধুর কথা মনে পড়েছে। যা রাগ হচ্ছেনা মনে হচ্ছে মাটিতে ফেলে তোকে মারি। মালতী তাড়াতাড়ি এখানে এস, দেখো কে এসেছে।
মালতী দেবীও ওর এই কথায় হন্তদন্ত করে দরজার সামনে ছুটে চলে এলেন।
মালতী দেবীঃ আরে কি ব্যপার মানব দা, আমাদের তো আর পাত্তাই দেন না। হু শুনেছি এখন নেতা হয়েছেন। আর কি আমাদের মতো সাধারন জনতার দিকে তাকানোর সময় হবে।
এক নিঃশ্বাসে কথা তা শেষ করে বাচ্চা দের মতো করে হে হে করে হেসে ফেললেন মালতী দেবী।
সুবীর বাবুঃ আচ্ছা ঠিক আছে, আগে ওকে ঢুকতে তো দাও। আয় মানব ভেতরে আয়।
মানব বাবু সুবীর বাবুর আলিঙ্গন থেকে মুক্ত হয়ে এক পা ভেতরে এসে দাঁড়ালেন। এবার একদম মালতী দেবীর মুখোমুখি। মালতী দেবী জানেন এবার কি হতে চলেছে। একবার তাই উনি আড় চোখে সুবীর বাবুর দিকে তাকালেন। সুবীর বাবু হথাত ই খুব গম্ভীর আর কিছুটা পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নিতে মুখ তা ঘুরিয়ে বাইরের দিকে তাকিয়ে আছে। মানব বাবু এবার মুখটা হাসি হাসি করে দু হাত মালতী দেবীর কাধে রেখে বলে উঠলেন
মানব বাবুঃ তোমাদের কি ভুলতে পারি বউদি। আমি ভুলিনি তাই তো চলে এলাম।
মালতী দেবীঃ ভুলেছ বই কি। আমার বুঝি দুষ্টু দেওর টাকে দেখতে ইচ্ছে হয়না। এতদিন কোথায় ছিলে তুমি?
মানব বাবুঃ সব বলব। আগে ভেতরে চল।
মানব বাবু আর মালতী দেবি ভেতরে যেতে শুরু করলেন, মানব বাবু পেছন ঘুরে একবার দেখলেন সুবীর বাবুর দিকে। সুবীর বাবু দরজার দিকে তাকিয়েই দাঁড়িয়ে আছে।
মানব বাবুঃ কিরে সুবীর আয় ওখানে দাঁড়িয়ে আছিস কেন, ভেতরে আয় অনেক কথা আছে।
সুবীর বাবু কোনও উত্তর না দিয়ে ওদের পেছন পেছন আসতে লাগলেন। মালতী দেবি জানেন সুবীর বাবুর এই আকস্মিক নীরবতার কারন। কিন্তু মালতী দেবীর তো কিছুই করার নেই। ৫-৬ মাসে লোকটা একবার হয়ত আসে, সব দ্বিধা দ্বন্দ্ব সরিয়ে রেখে ঠিক করে ব্যাবহার না করলে কি ভাববে ও যে এখন অবস্থা ফিরে গেছে তাই আর ওর দরকার নেই। মালতী দেবী মনে মনে ঠিক করে নেন, না যাই হোক না কেন সব ভুলে উনি মানব দার সাথে খুব ভালভাবে মিশবেন আর তাতে সুবীর বাবু যতই খারাপ ভাবুক না কেন।
মানব বাবুঃ সুবীর আয় ভেতরে, কিছু কথা আছে। আমি আধ ঘণ্টার মধ্যেই বেরিয়ে যাবো।
মালতী দেবীঃ না মানব দা বাড়ীতে ঢোকা তা তোমার ইচ্ছে অনুযায়ী হবে কিন্তু বেরনো তা আমার ইচ্ছে অনুযায়ী হবে। তুমি যতই চেষ্টা করো যাই তোমার রাজকাজ থাক আমি কাল সকালের আগে তোমায় ছারছিনা।
মানব বাবুঃ আরে বউদি এরকম বলনা। আমায় আজ যেতেই হবে। প্রচণ্ড ব্যাস্ততার মধ্যে আছি আমি।
সুবীর বাবুঃ আরে তুই এই রাতে কি আর কাজ করবি। তোকে আজ এখানেই থাকতে হবে কোনও কথা শুনছি না আমি। মালতী আজ তুমি লুচি বানাও আমি বাজার থেকে মুরগী নিয়ে আসছি। বহু দিন লুচি মাংস খাইনি।
মানব বাবুঃ আরে সুবীর তুই এখনো আমার ওই লুচি মাংসর লোভ তা ভুলতে পারলিনা বল। ঠিক আছে এই লুচি মাংসের জন্য আমি সব ই পারি। ঠিক আছে আজ রাত তা আমি এখানেই থাকছি, তোদের জ্বালাতন করতে।


Reply
#13
পর্ব ১১- স্মৃতিচারণ ৪
সুবীর বাবুঃ হা মানব বল কি একটা জরুরী কথা বলবি বলছিলি।
মালতী দেবীঃ আরে তুমি কি গো। এই তো বাইরে থেকে এল, আগে চা করে দি। তারপর ওর থেকে শুনি।
মানব বাবুঃ না বউদি আগে বলেই দি। বউদি আমি ভোটে দাঁড়াচ্ছি তাও আবার তোমাদের ওয়ার্ড থেকে। আর মানব তোকে কিন্তু একটু প্রচার করতে হবে। তোর ওয়ার্ড এ অনেক প্রফেসর আর স্কুল টিচার রা থাকেন। তোর ওদের মধ্যে জনপ্রিয়তা বিশাল। ভাই তুই একটু আমার হয়ে ওদের কাছে প্রচার কর এই আমি চাই।
মালতী দেবীঃ সে কি এত বড় একটা খবর আমাদের এত পরে দিচ্ছ আমরা সত্যি ই বোধ হয় তোমার পর হয়ে গেলাম মানব দা।
সুবীর বাবুঃ তোর আবার কি দরকার ছিল রে এসব ঝামেলায় জড়ানোর। বেস ভালই তো ব্যবসা নিয়ে মেতে ছিলি।
মানব বাবুঃ নারে অফার তা আসার পর অনেক ভেবে দেখলাম। আমার ৩ কুলে কেউ নেই তোরা ছাড়া। এখন যদি কিছু মানুষের উপকার করা যায় তাহলে নরকে গেলেও একটু শান্তি পাব।
মালতী দেবীঃ এই কারনেই আমি তোমায় এত বকি মানব দা। এরকম কথা আর কখন বল্বেনা। কি আর বয়স তোমার। আমার কথা শোন একটা বিয়ে করে নাও। এখনো তোমায় দেখতে ফিল্মি হিরোর মতো। মেয়েদের লাইন পরে যাবে।
মানব বাবু খুব জোরে একবার হাসলেন। মালতী দেবীও হাসি মুখে রান্না ঘরে চলে গেলেন মানব দার জন্য এক কাপ চা করে দিতে। এতক্ষনে দুই বন্ধু এক জায়গায় বসলো।
সুবীর বাবুঃ কি রে শালা। এখন কোথায় থাকিস, কি করিস।
মানব বাবুঃ কাজ কিছুই নেই। ওই বিজনেস আর একটু আদতু সমাজ সেবা। আর থাকি বলতে মনে পরে গেলো। তোর সৌম্যর কথা মনে আছে?
সুবীর বাবুঃ সৌম্য মানে আমাদের সৌম্য। রবির ভাই। হা ও তো শুনেছিলাম বিএসসি তাও কমপ্লিট করতে পারেনি। ও কোথায় রবির কি খবর।
মানব বাবুঃ রবি ৪ বছর আগে মারা গেছে। সৌম্য কে আমার বিজনেস টায় সুপারভাইজার করে ঢুকিয়ে দিয়েছি। বেচারার সংসার টানতে খুব কষ্ট হয়। ৩ বছর আগে বিয়ে করে ফেলেছে এখন মাথায় হাত। বাড়ীতে বৃদ্ধ বাবা মা বউ আর ১ বছরের দুধের শিশু।
মালতী দেবী চা নিয়ে ততক্ষনে চলে এসেছেন। মানব বাবু এক হাতে চায়ের কাপ তা ধরে বলে উঠলেন
মানব বাবুঃ সব বলব, কিন্তু ভাই শুধু লুচি মাংসে আমার পেট ভরবেনা।
মালতী দেবীঃ না মানব দা আমি তোমায় আজ ওইসব ছাইপাশ খেতে দেবনা। তুমি এখন আর আমাদের কাছে থাকনা আমি জানি তুমি রোজ ই খাও না বলার কেউ নেই। একবার শরীর তার কথাও ভাবো। তোমায় তিলোত্তমা আর রূপসার বিয়ে দিয়ে যেতে হবে।
মানব বাবুঃ আরে হা যে জন্য আসা এখানে। আমার মায়েরা কোথায় ওদের সাথে কথা বলতেই তো আসা এখানে। এত ভালো রেজাল্ট। ওদের পাড়া থেকে একটা সম্বর্ধনার ব্যাবস্থা করেছি। এই যে দুটো কার্ড রাখো।
সুবীর বাবুঃ মানব তুই বউদির সাথে গল্প কর, আমি বাজার থেকে ঘুরে আসি। নয়ত দেরী হয়ে যাবে।
সুবীর বাবু বাজারের ব্যাগ তা নিয়ে বেরিয়ে পরলেন আর সুবীর বাবুর চেয়ার টায় মালতী দেবী এসে বসলেন। মানব বাবু হাতের মধ্যে থাকা প্যাকেট তা মালতী দেবীর হাতে দিলেন।
মানব বাবুঃ এটা নাও বউদি। তোমার জন্য নতুন কিছু জামা কাপড় এনেছি। পুজাতে তো আসা হয়নি তাই এখন ই দিলাম।
মালতী দেবীঃ (এক হাতে প্যাকেট তা ধরে) না মানব দা প্লিজ আমি এটা নিতে পারবনা। তোমার বন্ধু জানতে পারলে খুব রাগ করবে। প্লিজ আমায় এটা দিয়না।
মানব বাবুঃ কেন রাগ কেন করবে? তোমাদের অবস্থা ফিরে গেছে তাই?
মালতী দেবীঃ (উনি এই কথার মানে বোঝেন) না এরকম কিছু নয়। ওহ দাও তো তুমি না সবসময় উল্টোপাল্টা ভাবো। এবার আমি যাই, আঁটা মাখতে হবে।
মানব বাবুঃ না বউদি, গেলে চলবে না। আগে এই কাপড় তা পরে তোমায় দেখতে হবে কেমন লাগছে।
মালতী দেবীঃ আমি পড়তে পারি। কিন্তু রান্না করতে হবে তো। রান্না হয়ে গেলে পড়লে হয়না।
মানব বাবুঃ ঠিক আছে, সুবীর আসুক তার পড়েই পর। ঠিক আছে তুমি রান্না করো এখন আমি পেপার পড়ি।
এদিকে সুবীর বাবু তখন সবে গেট এর সামনে। উনি সব ই শুনেছেন। মনের মধ্যে সেই পুরনো জ্বালা গুলো আবার মাথাচাড়া দিয়ে উথছে। সুবীর বাবু গেট তা খুলে বাইরে বেরিয়ে গেলেন। আজ একটু অদ্ভুত ধরনের ই অন্যমনস্ক উনি। মাথার মধ্যে বহু পুরনো ঘটনা ঘুরপাক খাচ্ছে।
তখন সবে সুবীর বাবুর বিয়ে হয়েছে। কলকাতার একটা এক কামরার ভাড়া বাড়ী তে বউ আর বাবাকে নিয়ে থাকেন। অততুকু জায়গায় বউ কে নিয়ে থাকা অসম্ভব তাও আবার বাবা শয্যাশায়ী। মানব বাবু প্রায় প্রতিদিন ই আসতেন। হথাত একদিন ওরা দেখে বাড়ীর সামনে ৩ তে বড় বড় লরি দাঁড়িয়ে। ওপরে এসে মানব বাবু বলেন “সুবীর বউকে নিয়ে এখানে থাকা সম্ভব নয়। তুই চল আমি একটা ব্যাবস্থা করেছি” এতটাই অসহায় ছিলেন ওরা এক কথায় বেরিয়ে পরেন। সেই সময় ই এই বাড়ীতে ওদের প্রবেশ। তখন বাড়ী বলতে ছিল একটা ঘর, বারান্দা আর এই উঠোন আর উঠোনে একটা পায়খানা আর কুয়ো। তা হলেও ভাড়াবাড়ির থেকে অনেক ভালো ছিল। সুবীর বাবু চাকরি তা পেয়েছিলেন আরও ৫ বছর পর। এই সময় টায় বেঁচে থাকতে মানব বাবুর ই মুখাপেক্ষি হয়ে থাকতে হত। আর এটা মালতী দেবী ও বুঝতেন। তাই বাড়িতে মানব দার জন্য ও আলাদা খাতির যত্নই করত। রান্না হত ওর ইচ্ছে মতো, বাড়ীর কাজ হত ওর ইচ্ছে মতো। মানব বাবু ও মালতী দেবী কে যথেষ্ট গুরুত্ব দিতেন। এই সময় সুবীর বাবুর নিজেকে প্রচণ্ড কাপুরুষ মনে হত। মানব বাবুর ইয়ার্কি গুলো আর মালতী দেবীর হেসে হেসে উত্তর দেওয়া সুবীর বাবুর গা জ্বালিয়ে দিত। ধীরে ধীরে এই ব্যাপার গুলো আর ৪ দেওয়ালের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলো না। পাড়ায় বিভিন্ন রকমের সব গুজব শুরু হোল। প্রথম প্রথম সুবীর বাবু এগুলকে পাত্তা দিতেন না। গুজব গুলোর মাত্রা আরও বাড়ল সুবীর বাবুর বাবা মারা যাওয়ার পর। সুবীর বাবু সকাল থেকে সন্ধে বাড়ীর বাইরে থাকতেন, বাড়ী ফিরে দেখতেন মানব বাবু বসে আছে। ও কখন আসতো কি করত তা উনি জানতেন না। এরকম ই এক রবিবার সুবীর বাবু বাজারে গেছেন কিছু কেনাকাটা করতে। সামনের রেশন দোকান তার সামনে একটা ছোট খাটো জটলা দেখে উনি থমকে দাঁড়ান। ওরা কি নিয়ে আলোচনা করছে তা জানার জন্য উলটো দিকের পান দোকান টায় উনি দাঁড়ান।
প্রথম ভদ্রলোকঃ আরে মশাই কাল কি দেখলাম জানেন? আমি তখন বাইরে বেরিয়ে দাঁত মাজছি। উঠতে একটু দেরী হয়ে গিয়েছিল। দেখি আমার পাঁচিল তার পেছনে ওই হারামি মানব টা ঘাপটি মেরে দাঁড়িয়ে আছে। আমায় ও দেখতে পায়নি। আমিও ওকে দেখে রাস্তার উলটো দিকের ওই গাছ তার পেছনে লুকিয়ে গেলাম। ওখান থেকে তো ওদের বাড়ীর মেন গেট টা পরিষ্কার দেখা যায়। দেখি দরজা টা খোলা, সুবীর সাইকেল নিয়ে বাইরে বেরচ্ছে আর পেছনে ওই মাগী টা। মাগিটা এসে রাস্তার এপারে দাঁড়ালো। সুবীর ওকে হাত নেড়ে সাইকেল টা নিয়ে হেটে হেটে যেতে শুরু করল। আর আপনাদের কি বলব মশাই মাগী টা আমার পাঁচিল তার দিকে তাকিয়ে হাতের ইশারা করল আর অমনি ওই হারামি টা উবু হয়ে মাথা ঝুকিয়ে এক দৌড়ে দরজার ভেতরে ঢুকে দাঁড়িয়ে থাকলো। মাগী টা ওখানেই থাকলো যতক্ষণ সুবীর কে দেখা যায় তারপর দরজার সামনে গেলো। তারপর কি হোল জানেন হারামি মালটা মাগিটার কোমর ধরে এক টান মারল আর মাগী টা ভেতরে গিয়ে একদম ওর বুকের ওপর পড়ল। ব্যাস দরজা বন্ধ।
বাকিরাঃ তারপর কি হোল। যা হওয়ার তাই হোল। আমি ভদ্রলকের ছেলে কেন অন্যের বাড়ীতে উঁকি মারতে যাবো।
দ্বিতীয় ভদ্রলোকঃ আরে মশাই সেদিন আমি বউ কে নিয়ে গেছি বাজারে, বউ এর খুব সখ নতুন সাড়ী কিনবে। ধুকেই দেখি মানব আর ওই মেয়েটা। জানেন ওরা কি করছিল? মানব ওপর থেকে একটা ঝুলে থাকা ব্রা পারল। সে ব্রা যা তা ব্রা নয়। লাল রঙের, গায়ে আবার ফুটো ফুটো। হিরোইন গুলো যেসব জিনিস পরে। ওই ব্রা টা মানব মেয়েটাকে দিল আর কি তাজ্জব মশাই মেয়েতাও নিয়ে নিল। শুধুই কি ব্রা নাকি তারপর নাইটি ব্লাউজ প্রায় সব ই কেনা হোল। সব ই এমন টাইপ এর যে আমরা কখনো বাড়ীতে বউ এর জন্য নিয়ে যেতে পারব না।
এই কথা গুলো সুবীর বাবুর প্রচণ্ড খারাপ লেগেছিল কিন্তু তবুও উনি নিজেকে সামলে নিয়েছিলেন কারন উনি জানেন এই অঞ্চলের মানুষের এই সব গসিপ করা স্বভাব। কিন্তু তৃতীয় ভদ্রলোকের কথাটা ওনার মাথা থেকে পা অবধি নড়িয়ে দিয়েছিল। উনি আর কোনও কিছু না ভেবে সোজা বাড়ীর দিকে চলে এসেছিলেন।
তৃতীয় ভদ্রলোকঃ আরে মশাই আপনারা তো অনেক কিছুই দেখেন নি যা আমি দেখেছি। ওদের বাড়ীর পেছনে যে বট গাছ টা আছে সেখানে আমি একদিন গেছিলাম পেচ্ছাপ করতে। হথাত মেয়ে মানুষের গোঙানির শব্দ পাই। ভাবলাম কোনও বিপদ তিপদ হয়েছে। তাই পাঁচিল টার ওপাশে উঁকি মারলাম। যা দেখলাম মশাই আমার মাথা ঘুরতে শুরু করল। মাগী টা পুরো লাংটো হয়ে পা দুটো ছড়িয়ে শুয়ে আছে। আর মানব পায়ের মাঝে মাথাটা গুঁজে পাগলের মতো চেটে যাচ্ছে আর শুঁকছে। ছি ছি কি বলব মশাই।
সেদিন আর সুবীর বাবু বাজারে থাকতে পারেন নি। সোজা বাড়ীর দিকে রওনা দেন।


Reply
#14
পর্ব ১২- স্মৃতিচারণ ৫
সুবীর বাবু সেদিন প্রায় দৌড়াতে দৌড়াতেই বাড়ী পৌঁছেছিলেন। সেই সময় মালতী দেবী স্নানের জন্য তৈরি হচ্ছিলেন। সুবীর বাবুকে দেখেই উনি বলে উঠলেন
মালতী দেবীঃ কি গো এত তাড়াতাড়ি বাড়ী চলে এলে।
কথাটা সুবীর বাবুর কানে ভীষণ ভাবে লাগলো। মনে মনে উনি বললেন কেন অন্য কারুর আশার কথা ছিল বুঝি। মালতী দেবীর কথার কোনও উত্তর না দিয়ে উনি ভেতরে চলে যান। চেয়ারে বসে আবার একবার বাইরের দিকে তাকালেন, তখন মালতী দেবী সাড়ীর মধ্যে হাত ঢুকিয়ে ব্লাউজ টা খুলে ফেলছেন। হথাত করেই সুবীর বাবু লক্ষ্য করলেন একটা সোনার চেন। উনি গম্ভীর হয়ে উঠোনে নেমে এলেন। মালতী দেবী তখন পা ছড়িয়ে মাটিতে বসে গেছেন। সাড়ী টা বড্ড বেশি এলোমেলো দুপাশ থেকে বিশাল দুটো স্তন একেবারে বেরিয়ে পড়েছে, খোলা পিঠ টা রোদ্দুরে চক চক করছে। হথাত মালতী দেবী পেছন ঘুরে দেখেন সুবীর বাবু দাঁড়িয়ে আছেন। উনি মুখতায় অতি পরিচিত সেই সেক্সি হাসি টা এনে বলেন
মালতী দেবীঃ এই এখন কোনও অসভভতামি করবে না, এক্ষুনি হয়ত মানব দা আসবে।
মানব আসবে একথা সুবীর বাবু জানতেন না। আজ আর ওর প্রানের চেয়েও প্রিয় মালতী কে আদর করতে ইচ্ছে হচ্ছেনা। এই শরীর টা দেখে মনে হয় কোনও এক বেশ্যার শরীর। যে প্রতি রাতে নতুন নতুন বাবুকে আদর করে।
সুবীর বাবুঃ তোমায় এই হার টা কে দিয়েছে।
মালতী দেবীঃ কে আবার মানব দা। এই শোন না তুমি ওকে একটু বারন করে দাও না এসব না আনার জন্য। রোজ কিছু না কিছু নিয়ে আসবে আমার খুব লজ্জা করে। আমি কি ই বা করি ওই মানুষ টার জন্য। শুধু ওর পছন্দ মতো খাবার ওকে খাওয়াই। জানো তো আজ আমি আলু পোস্ত করেছি। মানব দার খুব পছন্দ। ইচ্ছে করে ওই লোকটার জন্য কিছু করি কিন্তু কি বা সামর্থ্য আমার। ইস লোক টা যে কেন বিয়ে করেনা কিজানি। জানতো ওর বউ খুব সুখি হবে।
সুবীর বাবুর মাথাটা ভনভন করে ঘুরতে থাকে। উনি সোজা ভেতরে চলে আসেন। দুপুরে খেয়ে নিয়ে নিজের রুম এ শুতে যান। হথাত সেই সময় মানব বাবু এসে হাজির। মালতী দেবি ওর জন্য না খেয়ে অপেক্ষা করছিল। খাওয়ার সময় ওদের হাসাহাসি আর ইয়ার্কি গুলো সুবীর বাবুকে অতিস্ত করে তুলছিল। মানব বাবু খাওয়া শেষ করেই বেরিয়ে যান। ঘরে যে সুবীর বাবু ও আছে সে ব্যাপারে কোনও কথা ভাবেন ই নি। এবার মালতী দেবী আসেন বিছানায় শুতে। ওকে পাশে দেখে সুবীর বাবুর গা টা ঘেন্নায় ভরে যায়। সুবীর বাবু উঠে চলে যান পাশের ঘরে। মালতী দেবী স্বামীর এই অদ্ভুত আচরণে অবাক হয়ে যান। কিছুক্ষন ওখানে বসে থেকে উনিও পাশের ঘরের দিকে যান। দেখেন দরজা টা ভেতর থেকে বন্ধ। মালতী দেবী বাইরে থেকে ডাকতে শুরু করেন।
মালতী দেবীঃ তোমার কি হয়েছে প্লিজ বল আমায়। আমি কি কোনও ভুল করেছি।
ভেতর থেকে শুধু উত্তর আসে “আমায় বিরক্ত করোনা আমার খুব ঘুম পাচ্ছে”। মালতী দেবি বিষণ্ণ মনে আবার নিজের ঘরে ফিরে আসেন। বিছানায় শুয়ে বিষণ্ণ মনে আজেবাজে চিন্তা করতে করতে কখন যে ঘুমিয়ে পরেছিলেন সুবীর বাবু টা ওনার নিজের ও খেয়াল নেই। ঘুম ভাঙ্গে অত্যন্ত বাজে ও ঘৃণ্য একটা স্বপ্নে। কোনরকমে চোখে মুখে জল দিয়ে উনি ভাবেন স্বপ্ন টা সত্যি নয় তো। ওনার স্বপ্ন টা খানিকটা এরকম।---
“ সুবীর বাবু বাজার থেকে বাড়ি ফিরে দেখেন মেন দরজাটা ভেতর থেকে লক করা নেই। উনি মনে মনে ভাবলেন এরকম ভুল তো কখনো হয়না মালতীর। উনি দরজাটা খুলে ভেতরে ধুকবেন এমন সময় দেখেন একটা চামড়ার চপ্পল ওখানে রয়েছে। উনি এই চপ্পল টা চেনেন এটা মানব বাবুর। অর্থাৎ মানব বাবু এসেছেন অথচ সকাল থেকে একবারের জন্য ও মালতী দেবী ওনাকে কিছুই বলেনি। উনি জানেন আজ বাজারে যা শুনলেন টার পুরটা ভুল নয়। আজ ই সুযোগ ওদের দুজন কে হাতেনাতে ধরে নেওয়ার। সুবীর বাবু খুব সন্তর্পণে সামনে এগিয়ে গেলেন। কিছুটা গিয়েই উনি থমকে দাঁড়ালেন, বারান্দার কাছে দাঁড়িয়ে মানব। সুবীর বাবু দেওয়াল ঘেঁষে শান্ত হয়ে দাঁড়িয়ে থাকলেন। মানব আসতে আসতে নিচে নামতে শুরু করল, অর্থাৎ মানব উঠোনের দিকে কিছুটা চোরের মতো করে যেতে শুরু করল। তাহলে কি মালতী ওখানে... সুবীর বাবুও বারান্দার দিকে এগিয়ে গেলেন। হা ওনার সন্দেহ একদম ঠিক, মালতী উঠোনে বসে স্নান করছে, সাড়ী টা দায়সারা ভাবে বুকের ওপর জড়িয়ে রেখেছে। দুপাশ দিয়ে বিশাল দুটো দুধ বেরিয়ে পড়েছে টার ওপর খোলা পিঠ আর সাড়ীটা হাঁটুর ওপর অবধি গোটানো, গোটা গায়ে জল, নিচে সাবান রয়েছে হয়ত এবার উনি গায়ে সাবান মাখবেন। মালতী দেবী বুঝতে পারেন নি যে শিকারী কুকুরের মতো পেছন থেকে মানব বাবু ওর দিকে এগিয়ে আসছে। মানব বাবু একদম পেছনে এসে কিছুক্ষন দাঁড়িয়ে যান।
হথাত উনি পকেট থেকে একটা হার বার করে পেছন থেকে মালতী দেবীর গলায় পড়িয়ে দেন। মালতী দেবী তো খুব অবাক হয়ে পেছন ঘুরে তাকান।
মানব বাবুঃ বউদি মেয়েদের গলা ফাঁকা রাখতে নেই। পুরো ১০ ক্যারাটের জিনিস এটা।
মালতী দেবী হাঁটুর ওপর থেকে সাড়ী টা নাবিয়ে দেন আর পেছন ঘুরে মানব বাবুর দিকে তাকিয়ে বলেন
মালতী দেবীঃ এবার না তোমায় ধরে মারব মানব দা। এই তো কাল সাড়ী নিয়ে এলে এটার কি দরকার ছিল।
মানব বাবুঃ তোমায় এই সাড়ী আর সাথে এই হার টা পরে যা লাগছে না কি বলব। ক্যামেরা থাকলে একটা ফটো তুলে রাখতাম। তুমি যে এত সুন্দরী তা তোমায় এই অবস্থায় না দেখলে কিছুতেই বুঝতে পারতাম না।
মালতী দেবীঃ আবার বউদির সাথে অসভভতামি হচ্ছে। দাড়াও তোমার বন্ধুকে বলছি।
মানব বাবুঃ (মালতীর পিঠে হাত দিয়ে) কি বলবে আমি তোমায় রোজ বিছানায় সুইয়ে তোমার দুটো পা ফাঁক করে... বলই না, ও কিছুই বলবে না। তুমি খুব ভালো করেই জানো তোমার এই শরীর আর তোমার প্রতিদিনের চাহিদা কোনটাই ও মেটাতে পারবে না।
মালতী দেবীঃ এই না এখন নয়, ও বাজারে গেছে যেকোনো সময় ও এসে যেতে পারে। প্লিজ...
মালতী দেবীর এই কথা বা অনুরধ কোনটাই শোনার ইচ্ছে মানব বাবুর ছিলনা। ও কিছুটা জোর করেই ওর ওপর শুয়ে পরে, নিমেশের মধ্যে সাড়ী আর সায়া ছুড়ে বাইরে ফেলে দেয়। তারপর কুকুরের মতো করে নিজের সবচেয়ে কাছের বন্ধুর বউকে যৌন আস্তাকুর বানিয়ে ভোগ করতে থাকে। কিছুক্ষনের মধ্যেই মালতী দেবীর ও মুখ দিয়ে অহহ অহহ আসতে আসতে এই আওয়াজ গুলো বেরোতে থাকে”।
এরপর ই সুবীর বাবুর ঘুম ভেঙে যায়। এই গল্প তা আরও অনেক বার ওনার জীবনে এসেছে। হয়ত এই মালতী দেবি আর ওনার সম্পর্ক তাই ভেঙে যেত যদি না একদিন মালতী দেবি নিজের থেকে এসে সুবীর বাবুর সব ভুল ভাঙিয়ে দিতেন। সেদিন ই সুবীর বাবু প্রথম বুঝেছিলেন হয়ত মানবের মনে পাপ আছে কিন্তু টার স্ত্রী অত্যন্ত বিশ্বস্ত। এসব ই ভাবতে ভাবতে উনি চলছিলেন সামনেই ব্রয়লারের দোকান তা এসে গেলো তাই আবার এই জগতে ফিরে এলেন। সুবীর বাবু মুরগির মাংস নেওয়ার জন্য দোকান টায় ঢুকলেন। এই দোকান তা আবার নরেন বাবুর দোকানের ঠিক উলটো দিকে। তাই ওখানে বসে রাজু সুবীর বাবুকে দেখতে পেয়ে যায়। মালতী দেবি দের বাড়ীর কাউকে রাস্তায় দেখলেই রাজু টাকে ফলো করে, এটা ওর এক বদ অভ্যাস হয়ে দাঁড়িয়েছে। রাজু দোকানে একটা চেনা ছেলেকে বসিয়ে সুবীর বাবুর পিছু নেয়। সুবীর বাবুর মাংসর দোকান থেকে বেরিয়ে রাস্তার ধারে ২ কেজি আলু কেনেন। তারপর সোজা রাস্তা বরাবর হাঁটতে থাকেন। হথাত মদের দোকান এর উলটো দিকে এসে দাঁড়িয়ে যান। রাজু কিছুটা অবাক ই হয়ে যায়। যে লোকটাকে জীবনে কখনো একটা বিড়ি খেতে দেখেনি সে কিনা আজ মদ কিনবে নিশ্চয় কোনও ব্যাপার আছে। ও এটাও লক্ষ্য করে যে সুবীর বাবু এক লিটার এর একটা বোতল নিলেন। রাজু মনে মনে ভাবে আজ নিশ্চয় বাড়ীতে কিছু একটা হবে। তখন ই ওর মনে পরে যায় মানব বাবুর ওই কথাটা। “একবার ও বাড়ী থেকে ঘুরে আসি” নিশ্চয় মানব বাবু ওখানে আছে। কোনও প্রফেসর বাড়ীতে বন্ধু এলে যে এভাবে মদ কিনে নিয়ে যায় তা ওর জানা ছিলনা। কয়েক ঘণ্টা আগে যা ও শুনেছে তাহলে কি তা সত্যি। রাজুর ও মনটা খুব খারাপ হয়ে গেলো। ও হয়ত মালতী দেবীর শরীর তা নিয়ে অনেক কিছুই ভেবেছে, কিন্তু মানুষ হিসেবে ওনার প্রতি সম্মান একটা থেকেই গেছিল আর সেটা সাইদুল ও জানেনা। ও ঠিক করে সাইদুল কে একটা ফোন করবে।
রাজুঃ সাইদুল, এখন কোথায় আছিস ভাই?
সাইদুলঃ এখন তো একটু শ্যামবাজারে। ফিরতে এক ঘণ্টা হয়ে যাবে।
রাজুঃ ভাই ফিরেই আমার ঘরে আয় অনেক কথা আছে।
রাজু ঠিক করে নরেন বাবু দোকানে ফিরলেই ও একবার মালতী দেবি দেড় বাড়ির পেছন টায় যাবে আর লক্ষ্য করবে কি হচ্ছে। যে রহস্যর সন্ধান ও পেয়েছে তা ওকে যেভাবে হোক উন্মোচন করতেই হবে।
এদিকে সুবীর বাবু ধীরে ধীরে বাড়ির দিকে এগিয়ে যান। ওনার মনে একটা দ্বিধার সৃষ্টি হয়েছে। সেটা হোল সত্যি কি মদটা কেনা ভুল হয়ে গেলো। যতবার ই সুবীর বাবু মানব বাবুর সাথে বসে মদ খেয়েছে ততবার ই কোনও না কোনও অপ্রীতিকর অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। একটা সময় মন থেকে ঠিক ই করে নিয়েছিলেন উনি যে আর জীবনে মদ স্পর্শ করবেন না। কিন্তু কি আর করা যায় বন্ধুর প্রতি আনুগত্য দেখাতে নিজের করা শপথ তাও ভাঙতে হবে।
কিছুক্ষনের মধ্যেই সুবীর বাবু বাড়ীতে পৌঁছে গেলেন। তখন মালতী দেবি ভেতরে লুচি বানাচ্ছেন আর মানব বাবু কাগজ পড়ছেন। মানব বাবুকে দেখে সুবীর বাবু বলে উঠলেন
সুবীর বাবুঃ ভাই হুইস্কি এনেছি, পুরো লিটার চলবে তো।
মানব বাবুঃ চলবে মানে ছুটবে।
সুবীর বাবুঃ নাও মালতী বাজার করে এনেছি।
মালতী দেবীঃ আরে তুমি কি রসুন, আদা আর গোলমরিচ এনেছ।
সুবীর বাবুঃ কই তুমি তো বলনি। আচ্ছা দাড়াও পাড়ার দোকান থেকে এনে দিচ্ছি।
এদিকে রহস্য উন্মোচন করার জন্য রাজু ও পাঁচিলের ওপাশে এসে হাজির। ঘাপটি মেরে ও পরে থাকলো ভেতরে কি হয় তা দেখার জন্য।


Reply
#15
পর্ব ১৩- মদ্যপান-
সুবীর বাবু বেরলেন রশুন আর মশলা কিনতে আর মালতী দেবী কুয়ো পারে গেলেন বাসন গুলো ভালো করে ধুয়ে নিতে। এতক্ষন মানব বাবু পেপার পরছিলেন, আর ওনার বসে থাকতে ইচ্ছে করল না। আজ মানব বাবুর মনে আগুন জ্বলছে। ওদের বিয়ের পর থেকে কম করেননি ওদের জন্য। কারন একটাই মালতী, ওনার প্রিয় বউদি। সুবীর আর মালতীর বিয়ের রাতেই ওনার মনে আগুন ধরে যায়, বাড়ীর লোক বহু মেয়ের সম্বন্ধ এনেছিল কিন্তু যত মেয়েই উনি দেখেন ঘুরিয়ে ফিরিয়ে সেই মালতী দেবীর সাথেই তুলনা করে ফেলেন আর না বলে দেন। শেষে বাড়ীর লোক ও একদিন হাল ছেড়ে দেয়। তাই বলে যে মানব বাবু জীবনে কখনো নারী সুখ পাননি তা নয়। বহু বন্ধুর বা কর্মচারীর বউকে নিজের টাকা বা প্রভাব খাটিয়ে ভোগ করেছেন। কিন্তু কখনই মন ১ মাসের বেশি টেকে নি। মানব বাবুর বিশাল ব্যবসা প্রায় কোটিপতি ই বলা যায়। প্রচুর ছেলে ওনার ব্যবসায় কাজ করেন। এই লোক দের মধ্যে এমন একজন ও নেই যার সাথে মানব বাবু কোনদিন শোন নি। মানব বাবুর একটা অদ্ভুত মানসিকতা আছে, উনি কাউকে ব্লাকমেল করেন না, ভয় দেখান না, কিন্তু তবুও উনি মেয়েদের পেয়ে যান। বন্ধু মহলে উনি বলে থাকেন উনি মেয়ে পটান। হা সত্যি ই এটা অস্বিকার করা যায়না যে উনি সত্যি ই মেয়ে বিশেশত বিবাহিত মহিলাদের পটান। আর টেকনিক একটাই। প্রথমে একটা সংসারের জন্য প্রচুর করো নিজেকে দয়ালু ও মহান ব্যক্তি হিসেবে স্থাপন করো। তারপর খুব সন্তর্পণে সেই লোকটার দুর্বল জায়গা গুলো কে চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখাতে শুরু করো। আর সবশেষে নিজের অবিবাহিত জীবনের যন্ত্রণা ব্যাখ্যা করে একটা সহানুভুতি আদায় করে নাও। মানব বাবুর ভাষায় এরপর সেই মহিলা নিজের থেকেই এসে যাবে কোনও কসরত ই করতে হবে না। হা এইভাবে সত্যি ই মানব বাবু শতকরা ৯৯.৯৯ ভাগ সফল। ১০০ ভাগ সফল না বলার একটাই কারন তা হোল মালতী দেবী। গোটা পৃথিবী যা জানে তা ভুল, আর মালতী দেবী, সুবীর বাবু আর মানব বাবু যা জানেন তা ঠিক। মানব বাবু সত্যি ই এখনো মালতী দেবীর সাথে শুতে পারেন নি। হয়ত চেষ্টা করলে পারতেন। কিন্তু উনি ওনার প্রথম পদ্ধতি অর্থাৎ মালতী দেবীর সামনে সুবীর বাবুকে দুর্বল দেখান এই জায়গাটায় সফল নন। তাই উনি চেষ্টাও করেন নি। উনি ওনার গতে বাধা পদ্ধতির বাইরে কিছুতেই যেতে চান না। আর হয়ত এটাই মানব বাবুর জীবনের সবচেয়ে বড় সত্যি। উনি মরার আগে একবার অন্তত একবার মালতী দেবীর সাথে শুতে চান, তবে অবশ্যই সেটা মালতী দেবীর ইচ্ছা অনুযায়ী। তার কারন জীবনে একি মহিলার প্রতি এতদিন উনি কখনই আকৃষ্ট হন নি। মানব বাবু ও এটাই বিশ্বাস করেন যে মালতী দেবী ওনার জীবনের সবচেয়ে বড় দুর্বলতা। আসলে একটা সময় উনি বিশ্বাস করতেন যেকোনো দিন ই মালতী দেবী ওর শরীর তার নিচে আসবে। কিন্তু মেয়েরা যত বড় হতে থাকে মালতী দেবী ততই নারী থেকে মা তে পরিনত হন। এক সময় মানব বাবু সব আশা ছেড়ে ভাবতে শুরু করেন যে না আর বোধ হয় মালতী কে পাওয়া ওর হবেনা। গতকাল জয়েন্ট এন্ট্রান্স এর রেজাল্ট বেরোনোর পর ই ফোন আসে সুবীর বাবুর। হথাত করে কেন মানব বাবুর মনে হয় এবার সেই সময় চলে এসেছে যার জন্য এত অপেক্ষা করে রয়েছিল। এতদিন ওর ই সুপারভাইজার সৌম্যর স্ত্রী সুমিতার সাথেই মানব বাবু নিজের রাত টা নষ্ট করতেন। জয়েন্ট এর রেজাল্ট এর খবর টা পাওয়া মাত্র হথাত করেই সুমিতার ওপর থেকে মন টা উঠে যায়। তাই সোজা একদম মালতী দেবীর বাড়ি।
বারান্দা টায় দাঁড়িয়ে মানব বাবু এসব ই ভাবছিলেন। ওদিক থেকে রাজু ও সব লক্ষ্য করছে। মালতী দেবী মন দিয়ে বাসন মাজছেন, ওনার সাড়ী টা হাঁটুর অনেক ওপর অবধি তোলা। মানব বাবুর নজর টা সোজা ওইদিকেই। আর রাজুর নজর দুজনের ই দিকে। মানব বাবু ভাবলেন সুবীরের আসতে হয়ত আরও কিছুটা দেরি হবে এই সময় একটু এগিয়ে গিয়ে কিছু করা যেতে পারে। মানব বাবু হাতে সাড়ীর প্যাকেট টা নিয়ে আসতে আসতে এগিয়ে গেলেন, মালতী দেবীর দিকে। মালতী দেবী কিছুই বুঝতে পারেননি। রাজু উত্তেজনায় কাপছে। মানব বাবু আসতে করে মালতী দেবীর পাসে বসে ওর কাধে হাত টা রাখেন। হয়ত মালতী দেবী কিছুটা ঘাবড়েই গেছেন কিন্তু উনি এই স্পর্শ টা চেনেন। উনি না তাকিয়েই বলে দিলেন
মালতী দেবীঃ মানব দা তুমি এই অন্ধকারে এলে কেন। আমি তো যাচ্ছিলাম বাসন গুলো ধুয়ে। যাও তুমি গিয়ে ওখানে বস।
মানব বাবুঃ বউদি তুমি এভাবে বাড়ীর সব কাজ একাই করো আমি তো ভাবতেই পারিনা। আর কত কষ্ট করবে তুমি। মেয়েরা ডাক্তার ইঞ্জিনিয়ার হয়ে গেলো এবার তো রানীর মতো থাকো।
মালতী দেবীঃ (বাচ্ছাদের মতো খিল খিল করে হেসে) আমি ঠিক এই জিনিস তাই মিস করছিলাম জানতো। এই কথা গুলো আমি বহুদিন শুনিনি। ইস যদি আর কেউ এত আমায় বুঝত।
রাজু সব ই শুনছে আর ওর মনে মালতী দেবীর সম্বন্ধে প্রচণ্ড ভুল একটা ধারনা বসে যাচ্ছে।
মানব বাবুঃ (মালতী দেবীর কাধে হাত বোলাতে বোলাতে) তুমি এটাকে ইয়ার্কি ভাবছ বউদি। আর একি কাপড় চোপড়। তুমি একজন অধ্যাপকের স্ত্রী। কেন এটা ভুলে যাও বলত। একটু সেজে গুঁজে থাকতে পারনা তুমি।
মালতী দেবীঃ (আবার খিল খিল করে হেসে) তুমি একটা বিয়ে করে ফেলো আমি তোমার বউ কে মনের মতো করে সাজাবো। আমি কিন্তু মেয়ে দেখতে শুরু করব।
মানব বাবুঃ ইয়ার্কি নয় বউদি। সত্যি আমার খুব বাজে লাগছে। সুবীর টা পরাশুনা ছাড়া কিছুই কখনো বুঝলনা। এতোটা কেয়ারলেস হলে কি চলে। আমি আজ ই ওর সাথে কথা বলব।
মালতী দেবীঃ না তুমি ওকে কিছুই বলবে না। জানো তো মানব দা, আমি ওকে প্রায় রোজ ই বলি তোমার বউ খুব সুখি হবে। তুমি বিয়েটা কেন করছনা বলত।
মানব বাবুঃ আমার কথা ছাড় আগে তুমি একবার দেখো এই কাপড় গুলো তোমার পছন্দ হোল কিনা।
মালতী দেবীঃ ওহ মানব দা, তোমার কি মাথা খারাপ হয়েছে, আমার আর বয়স ও নেই শখ ও নেই। ঠিক আছে তোমার দেওয়া জিনিস তো এটা আমার ই পছন্দের আমি জানি। কই দাও দেখি।
মানব বাবুর হাত থেকে ব্যাগ টা নিয়ে মালতী দেবী কাপড়টা বার করলেন। লাল ও হলুদ রঙের একটা কাপড়, দেখেই মনে হয় প্রচুর দামী জিনিস। ওপাশ থেকে রাজু ও দেখছে। সাথে একটা সাদা ব্লাউজ ও আছে। রাজু মনে মনে ভাবছে হারামি টা ব্লাউজ এর সাইজ ও জানে। হথাত মালতী দেবীর হাত থেকে সাদা মতো একটা কিছু নিচে পড়ল। মালতী দেবী ই আবার নিচ থেকে ওটা তুললেন। এবার রাজুর মাথা খারাপ হয়ে গেলো। এটা তো ব্রা। মালতী দেবী সঙ্গে সঙ্গে ব্রা টা কাপড়ের নিচে ঢুকিয়ে দিলেন। ওদের এই অদ্ভুত ব্যবহারে রাজুর মনে আর কোনও সন্দেহই থাকলো না। রাজু মন থেকে এটাই বিশ্বাস করে নিল যে মালতী দেবী আসলে মানব বাবুর রক্ষিতা। রাজুর ও আর ওখানে বসে থাকতে ভালো লাগলো না। এই মহিলা টাকে পাওয়ার জন্য ও নিজের এত সময় নষ্ট করেছে, রতন বাবুর কাছে কত গালাগালি খেয়েছে। এর জন্য। একে তো টাকা দিয়ে কেনা যায়। যেকোনো সময় ই ওকে ভোগ করা যায়। নিজের ওপর ই রাজুর আক্ষেপ হতে লাগলো। রাজু আসতে আসতে ওখান থেকে উঠে বস্তির দিকে যেতে লাগলো। কিছুক্ষনের মধ্যেই হয়ত ওর ঘরে সাইদুল এসে যাবে। ওকে সব কিছু বলবে। মনে মনে তিলোত্তমা, রূপসা আর মালতী দেবী তিন জন কেই বেশ্যা বলতে বলতে ও চলে গেলো।
মানব বাবু আবার ঘরে গিয়ে বসলেন। কিছুক্ষন পর সুবীর বাবু ও ফিরে এলেন। সুবীর বাবুকে দেখা মাত্র মানব বাবু বলে উঠলেন
মানব বাবুঃ চল ভাই আর ভালো লাগছেনা, এবার শুরু কর। পুরো এক লিটার এর বোতল আছে। বউদি তাড়াতাড়ি মাংস বানিয়ে আমাদের দিয়ে যাও।
মালতী দেবীঃ হা মাংস আমি আধ ঘণ্টার মধেই বানিয়ে দিচ্ছি।
সুবীর বাবুঃ মানব আজ চল উঠোন টায় একটা খাটিয়া পেতে বসে মাল খাই। আর তুই খেয়ে জাবি আমি মাঝে মধ্যে খাব। তুই তো জানিস আমার দৌড় কতদুর।
সুবীর বাবু আর মানব বাবু উঠোনে গিয়ে একটা খাটিয়া পেতে মদের বোতল আর দুটো গ্লাস নিয়ে বসে পড়লেন। বরাবরের মতো এবার ও পেগ টা মানব বাবুই বানালেন। মানব বাবুর স্টাইল ই এটা। প্রথম ও শেষ পেগ খুব কড়া আর মাঝের গুলো হাল্কা।
মানব বাবুঃ দেখ ভাই প্রথম টা খুব কড়া বানাচ্ছি। এক চুমুকে খাবি কিন্তু তারপর চুপটি করে বসে থাকবি। আমার ৩ পেগ আর তোর ১ পেগ এভাবে খেলেই শেষ অবধি টানতে পারবি।
চিয়ার্স বলে জোরে একটা শব্দ করে সুবীর ও মানব বাবু দুজনেই এক চুমুকে প্রথম পেগ টা শেষ করে দিলেন। সুবীর বাবুর গা টা গোলাতে শুরু করে দিল। এদিকে মালতী দেবী লুচি ও মাংস নিয়ে হাজির। মালতী দেবী একবার সুবীর বাবুর দিকে তাকালেন আর মুচকি হাসলেন।
মানব বাবুঃ বউদি এবার তো রান্না শেষ যাও এবার আমার কাপড় গুলো পরে এস।
মালতী দেবীঃ মানব দা আর একটু কাজ বাকি আছে তারপর ই পরবো কেমন।
মালতী দেবি আবার ভেতরে চলে গেলেন। এবার মানব বাবু নিজের জন্য কড়া একটা পেগ আবার বানালেন।
মানব বাবুঃ সুবীর তুই বিশাল লাকি রে।
সুবীর বাবুঃ কেন হথাত একথা বলছিস কেন?
মানব বাবুঃ আরে এত সুন্দরী বউ আমাদের বন্ধুদের মধ্যে আর কেউ পেয়েছে কি।
সুবীর বাবুঃ হা তা একদম ঠিক। (বলে জোরে একটা হাসি)(মানব বাবু বুঝতে পারলেন যে তার বন্ধুর নেশা চড়তে শুরু করেছে) ভাই আমার আরেকটা পেগ বানা।
মানব বাবুঃ আরে না তুই পারবি না। আবার তোর শরীর খারাপ করবে, কিছুক্ষন পরে খাস।
সুবীর বাবুঃ কেন পারব না। আচ্ছা দাড়া আমি নিজেই বানিয়ে নিচ্ছি।
বলে আনকোরা হাতে গ্লাস এ অরধেকের বেশি মদ ঢেলে দিলেন। অভিজ্ঞ সুবীর বাবু জানেন এবার তার বন্ধুকে খুব সহজেই বাগে পাবে। সুবীর বাবু এক চুমুকে আবার গ্লাস তা শেষ করে দিলেন।
মানব বাবুঃ কি রে ঠিক আছিস না আরেকটা বানাবো?
সুবীর বাবুঃ তুই আরও একটা বানা, আর শালা এরকম বিহেভ করছিস কেন আমি কি বাচ্চা।
মানব বাবু এবার একটা লাইট পেগ বানালেন, সুবীর বাবু চুমুক দিতে দিতে বলে উঠলেন
সুবীর বাবুঃ হা কি যেন বলছিলি। হা আমার বউ খুব সুন্দরী। হা সত্যি ও খুব সুন্দরী।


Reply
#16
পর্ব- ১৪- মানবের গল্পঃ
সুবীর বাবুঃ হা আমার বউ সুন্দরী। কিন্তু তুই কেন বিয়েটা করলিনা শালা। তাহলে তো তোর বউকেও সুন্দরী বলে তোকে আমি রাগাতাম। (মানব বাবুর কলার তা ধরে) বল শ্যালা কবে বিয়ে তা করবি তুই।
মানব বাবুঃ তুই কি পাগল নাকি। তুই জানিস তোর থেকে আমি অনেক সুখি আছি। একি মেয়েকে রোজ রোজ দেখতে কারুর ভালো লাগে নাকি। আচ্ছা তুই বল তো বউদি কে এখন আর তোর আগের মতো সুন্দরি লাগে?
সুবীর বাবুঃ হা লাগে, হাজার বার লাগে। তুই যেটাকে সুখ বলছিস তা সুখ নয় অসুখ।
মানব বাবুঃ ব্যাস আবার তোর শুরু হোল। আচ্ছা নে তুই ঠিক আমি ভুল।
সুবীর বাবুঃ তুই জানিস বাজারে সবাই তোর সম্বন্ধে কত বাজে বাজে কথা বলে শুনে আমার ও লজ্জা লাগে।
মানব বাবুঃ তুই আমায় চিনিস সুবীর। তোর থেকে আমি এটা আশা করিনি।
সুবীর বাবুঃ (মানবের দিকে তাকিয়ে) সরি রে। আমি ঠিক এভাবে বলতে চাইনি।
মানব বাবুঃ এত বড় কথা বললি যখন তখন তোকে আজ সব সত্যি কথাই বলি। আমি কখনো পরস্ত্রীর দিকে বদ নজরে দেখিনি। যা হয়েছে উভয় পক্ষের মত নিয়েই হয়েছে।
সুবীর বাবুঃ ভুলে যা না। মদ খেয়ে বলে ফেলেছি প্লিজ ভুলে যা।
মানব বাবুঃ বউদি যদি তোর জীবনে না থাকতো ভেবে দেখ তো একা লড়াই করা তোর পক্ষে কতটা কঠিন হয়ে যেত।
সুবীর বাবুঃ এটা আমি মানি রে। মালতীর বিশাল অবদান আছে। তোর ও আছে। আচ্ছা তুই সৌম্যর কথা বলছিলি না। বল ওর কি খবর।
মানব বাবুঃ আর বলিস না কেলেঙ্কারির একশেষ। ছেলেটা না খেতে পেয়ে মরছিল আমার কাছে এল আমিও বন্ধুর ভাই ভেবে কাজে রেখে দিলাম। (নিজের জন্য আরও এক পেগ বানাতে বানাতে) দুদিন ছাড়া মাইনে বাড়াতে বলে। প্রথমে সংসারের কথা ভেবে আমি এক মাসে মোট দুবার মাইনে বারিয়ে দিলাম।
সুবীর বাবুঃ তুই তো খুব ভালো কাজ করেছিস। কিন্তু প্রবলেম তা কোথায়।
মানব বাবুঃ তার পরের মাসে যখন বলল মাইনে বাড়াতে আমি আর রাজি হলাম না। ছেলেটা খুব চুপ হয়ে গেলো। খারাপ আমার ও লাগছিল। কিন্তু কি কড়ি বল তো। কোনও একজন কর্মচারীর দিকে বেশি তাকালে তো বাকিরাও রুষ্ট হবে। ওকে নিয়ে বাকিদের মধ্যে একটা অসন্তোষ হচ্ছিল।
সুবীর বাবুঃ তারপর কি হোল।
মানব বাবুঃ (আবার নিজের ও সুবীর বাবুর জন্য দুটো কড়া পেগ বানাতে বানাতে) একদিন হথাত বলে দাদা আমার বাড়ীতে চল। নতুন চাকরি পেয়েছি আজ তোমায় মাংস ভাত খাওয়াব। আমিও ওর বউ এর জন্য একটা কাপড় আর বাচ্ছার জন্য একটা জামা কিনে ওর সাথে ওর বাড়িতে হাজির হলাম।
এদিকে এই পেগটা খেয়ে সুবীর বাবুর মাথা তা ঝিম ঝিম করতে লাগলো। চোখ গুলো প্রায় বুজে এলো।
মানব বাবুঃ (সুবীরের থাই তে হাত বোলাতে বোলাতে) শালার বউ খানা একদম ঘ্যামা জিনিস। আমার কি দোষ আমি অবিবাহিত। আমি চোখ সরাতে পারিনি।
সুবীর বাবুঃ তারমানে শালা তুই সত্যি ই কিছু করেছিস। বল শালা।
মানব বাবুঃ (আরও দু খানা পেগ নিজেদের জন্য বানিয়ে) আরে ধুর শোন ই না। হথাত দুদিন হয়ে গেলো সৌম্য অফিস এ আশা বন্ধ করে দেয়। আমার তো মাথায় হাত, সুপারভাইজার ছাড়া কি মুস্কিল বুঝিস তো।
সুবীর বাবুঃ (উনি এবার খাটিয়া তে শুয়েই পড়লেন, পা গুলো নিচে আর মাথাটা মানব বাবুর কোলে। আর এদিকে মানব বাবু ও বুঝতে পারছেন সব প্ল্যান সফল হচ্ছে) তোর তো ফোন করা দরকার ছিল।
মানব বাবুঃ হা আমি ফোন করলাম। ও বলল ওর বাচ্চাটার খুব শরীর খারাপ। আমি বুঝলাম এই মুহূর্তে ওর টাকা দরকার। আমি এই রাত নটা নাগাদ নিজের সব কাজ শেষ করে ওদের বাড়ীতে গেলাম। ভেতর থেকে ওর বউ সুমিতা বেরিয়ে এলো।
সুবীর বাবুঃ (ঝিমতে ঝিমোতে )বাহ দারুন নাম তো।
মানব বাবুঃ এই তুই আগে এক কাজ কর। উঠে বস আর জামা তা খোল। আমি ভেতর থেকে তোর একটা বারমুন্দা এনে দিচ্ছি ওটা পরে নে।
সুবীর বাবু কিছুই বললেন না। মানব বাবু ভেতরে চললেন সুবীরের জন্য একটা বারমুন্দা আনার জন্য। ঘরের ভেতর গিয়ে উনি দেখলেন মালতী দেবী তখন রান্নাঘর তা পরিষ্কার করছেন।
মালতী দেবীঃ কি গো মানব দা তোমাদের হোল। আর কতক্ষন বলতো ভালো লাগছে না। আমায় তো বাসন গুলো মেজে রাখতে হবে নাকি।
মানব বাবুঃ ব্যাস হয়ে এসেছে। তুমি এখানে খেয়ে নিও। আর হা যতক্ষণ না আমি তোমায় ওই ড্রেস টায় দেখছি আমি কিন্ত শুতে জাচ্ছিনা। আর সুবীরের জন্য একটা বারমুন্দা দাও।
মালতী দেবীঃ ওই ওখানে আছে। আমি খেয়ে নি তারপর পরবো।
মানব বাবু হাতে বারমুন্দা তা নিয়ে বাইরে এলেন। সুবীর বাবু তখন বসে বসে ঝিমচ্ছেন।
মানব বাবুঃ নে সুবীর জামা কাপড় তা ছেড়ে দিয়ে এই বারমুন্দা তে খালি গায়ে বস, ফ্রেস লাগবে।
সুবীর বাবু ওনার কথা শুনলেন আর ড্রেস তা খুলে বারমুন্দা পরে নিলেন।
সুবীর বাবুঃ নে বাকি গল্প তা বল আর পেগ বানা। আরও দুবারে শেষ হবে মদ তা।
মানব বাবুঃ (পেগ বানাতে বানাতে) হা আমি সৌম্যর বাড়ীতে যখন পউছালাম তখন বাজে প্রায় রাত ১০ তা। আমার খারাপ লাগছিল এত রাতে ওখানে যেতে। কিন্তু যতই হোক ওর বাচ্চার শরীর খারাপ, কিছু টাকার নিশ্চয় দরকার। আমি দরজায় থক থক করলাম। ভেতর থেকে বেরিয়ে এলো সুন্দরী সুমিতা। ভাই বললে বিশ্বাস করবি না ও ব্লাউজ পরে ছিলনা। কি বিশাল ওর দুধ গুলো রে। আমি নজর সরাতে পারিনি। দুধে আলতার মতো গায়ের রঙ আর ঠিক সেরকম সুন্দর মুখশ্রী। আমাকে দেখেই হেসে বলে দাদা আজ কিন্তু না খাইয়ে ছারছিনা। আমিও না বলতে পারলাম না।
সুবীর বাবুঃ কিন্তু সৌম্য কোথায় ছিল?
মানব বাবুঃ সেটা একটা রহস্য। আমি ওকে জিগেস করলাম সৌম্য কোথায়। ও বলল গ্রামের বাড়ী গেছে কাল দুপুরে ফিরবে। আমি বাড়ী তার চারপাশে ভালো করে দেখলাম, রুম তার একদিকে বাচ্চা তা ঘুমাচ্ছে। ভেতরে একটা ঘর সেটা আবার অন্ধকার। অর্থাৎ বাড়ীতে সুমিতা ছাড়া আর কেউ নেই। আমার শরীরে উতেজনা সৃষ্টি হয়ে যায়। হথাত সুমিতা আমায় বলে দাদা এই বাড়িতে আমার একা থাকতে খুব ভয় লাগছে আপনি যদি আজ রাত তা এখানে শোন আমার খুব ভালো হয়। ভেতরে একটা ঘর আছে দেখে আমি রাজি হয়ে যাই।
সুবীর বাবুঃ কি বলছিস রে সালা। সত্যি তুই ই এইসব সুযোগ পাস। তারপর কি হোল।
মানব বাবুঃ ভাই বললে বিশ্বাস করবিনা একবারের জন্য ও সাড়ী তা ঠিক করার বা ভেতরে ঢুকে ব্লাউজ পরার প্রয়োজন বোধ করেনি। খাওয়া হয়ে যেতে আমি বললাম সুমিতা আমায় একটা বালিশ আর চাদর দাও আমি ভেতরের ঘরটায় গিয়ে শুয়ে পরছি। তার উত্তরে কি বলে জানিস। দাদা আপনি ভেতরের ঘরটায় শুতে পারবেন না ওখানে খুব নোংরা। এখানেই শোন।
সুবীর বাবুঃ (গ্লাসের মদ তা শেষ করে) ওহ আমার না সত্যি বিশাল উত্তেজনা হচ্ছে। তাড়াতাড়ি বল তারপর কি হোল।
মানব বাবুঃ (আরও একটা পেগ একটু হার্ড পেগ যেহেতু এটাই শেষ বানাতে বানাতে) ভাই বাচ্চা তা এক কোনায় শুয়ে ছিল। আমি আরেক পাশে শুয়ে পরলাম। সুমিতা ছিল বাথরুম এ। ও এসে আমার আর বাচ্চা তার মাঝে সুয়ে পড়ল।
সুবীর বাবুঃ তুই সত্যি বলছিস এরকম ও হয় নাকি।
মানব বাবুঃ আরে ভাই হয়। গল্পটায় একটা বিশাল টুইস্ট আছে, শেষে বুঝবি। আমি শুয়ে আছি। কখন যে সুমিতা পাশে এসে সুয়েছে আমি জানিনা। সারাদিন প্রচণ্ড ক্লান্ত ছিলাম। শরীর কুলাচ্ছিলনা তাই চোখ তা বুজে এসেছিল। ঘরের লাইট তা জলছিল তাই হয়ত আমার চোখ তা খুলে গেছিল। আমি পাশে দেখি সুমিতা একদম লাংটো হয়ে আমার পাশে শুয়ে আছে। গায়ে সামান্য কাপড় টুকুও নেই। আমি কিছুতেই চোখ সরাতে পারিনা। ওর মুখের দিকে তাকিয়ে দেখি ও আমার দিকেই তাকিয়ে আছে আর ঘন ঘন নিঃশ্বাস ফেলছে। আমি চুপ করে ওর দিকে তাকিয়ে সুয়ে থাকি। আসতে আসতে সুমিতা উঠে বসে আর আমার দুটো কাধের ওপর ভর দিয়ে আমার কপালে একটা চুমু খায়। ব্যাস আমার ও নিজের ওপর থেকে কন্ট্রোল চলে যায়। আমি মাটিতে ফেলে ওকে চটকাতে শুরু করি। ওহ কি শরীর রে তোকে বঝাতে পারব না। যখন উথলাম ঘুম থেকে মনে হচ্ছিল স্বর্গে আছি। ঘুম ভাঙার পর ওকে মাটিতে ফেলে আবার একবার শুরু কড়ি।
সুবীর বাবুঃ (হা হা করে হেসে) ওরে তোর স্বভাব আমি জানি। এতক্ষন তুই যা বললি সব বানিয়ে বানিয়ে। আমায় কি গাধা ভাবিস তুই। অইতুকু একটা বাচ্চা মেয়ে, ওর যদি এত শখ ই থাকে তো পাড়ার ই কোনও ছেলের সাথে শুতে পারত তোকে কেন বেছে নিল। গুল মারার আর জায়গা পাস নি। আর কোন একটা টুইস্ট এর কথা বলবি বলছিলি সেটা কোথায় গেলো।
মানব বাবুঃ তুই বিশ্বাস কর ভাই, আমি আমার মরা মায়ের দিব্বি করে বলছি সব সত্যি বলছি।
এতক্ষনে সুবীর বাবুর বিশ্বাস হোল। ও জানে ওর বন্ধু আর যাই হোক মরা মায়ের দিব্বি করে মিথ্যে বলবে না। এদিকে মালতী দেবীর খাওয়া হয়ে গেছে ও এদিকেই এগিয়ে আসছে।
মালতী দেবীঃ কি গো তোমার আর কতক্ষন। আমায় বাসন মাজতে হবে তো। আর তুমি এরকম জামা কাপড় খুলে দিয়েছ কেন, ঠাণ্ডা লেগে যাবে তো।
মানব বাবুঃ ওহ কিছু নয়। ওর গরম লাগছিল তাই আমি ই খুলতে বলেছিলাম।
মালতী দেবী আবার ভেতরে ঢুকে গেলেন।


Reply
#17
পর্ব ১৫- টুইস্টঃ
সুবীর বাবুঃ হা এবার বল, টুইস্ট তা কি।
মানব বাবুঃ (একটু মুচকি হেসে) আগে তুই আমার একটা প্রশ্নের জবাব দে। কখনো ভেবে দেখেছিস নিজের সেক্স লাইফ কে কি করে আরও বেশি উত্তেজক করা যায়। ভাবিস নি তো। এবার ভেবে দেখ মেয়েরা বাইরে যাচ্ছে। অনেক কষ্ট করেছিস। এবার একটু চেষ্টা কর অন্য কিছু করার।
সুবীর বাবুঃ এইসব হেয়ালি রাখ। আমায় তুই বলবি কি টুইস্ট তা কি। নয়ত আমি ঘুমাতে যাবো। খুব ঘুম পাচ্ছে আমার।
মানব বাবুঃ আরে বলব না মানে। তোকে বলব শেখাব সব করব, সেই জন্যই তো এসেছি এখানে। আচ্ছা বল তো সিনেমায় যখন দেখিস নায়ক নায়িকা ঘনিষ্ঠ ভাবে রয়েছে তোর শরীরে উত্তেজনা হয় তো। হা এই উত্তেজনা তাই সব। জানিস তো এর উলটো পথ টায় ও উত্তেজনা আসে। আমি আগে সেটা জানতাম না, আমায় সেটা ই সুমিতারা শিখিয়েছে আর এটাই হোল টুইস্ট।
সুবীর বাবুঃ উলটো পথ তা আবার কি? হা আমার ঘনিষ্ঠ অবস্থায় নায়ক নায়িকা কে দেখলে খুব উত্তেজনা হয়। সত্যি ই খুব উত্তেজনা হয়।
মানব বাবুঃ এবার ধরে নে ওই নায়িকা তা তোর ই কেউ। তোর কোনও আত্মীয়া হয়ত তোর বউ বা তোর প্রেমিকা। সে নিজের ইচ্ছে তে অন্যের সাথে লুকিয়ে ঘনিষ্ঠতা করছে আর তুই তা লুকিয়ে দেখছিস। কেউ জানতেও পারছেনা বুঝতেও পারছেনা। জাস্ট ভাব একবার।
এত মদ একসাথে এর আগে কখনই সুবীর বাবু খান নি। তাও এখনো বসে আছেন। মানব বাবু জানেন এই মুহূর্তে ও প্রচণ্ড দুর্বল ওর মন থেকে সব সত্যি কথাই বেরোবে। প্রায় ২-৩ মিনিট চারপাশ তা একদম চুপচাপ। মানব বাবু একদৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকেন সুবীর বাবুর দিকে। ওর শরীরের উত্তেজনা বাড়ছে, ওর নিঃশ্বাস গুলো তার ই প্রমান দিচ্ছে। মানব বাবু বুঝলেন হা ভয়ের কিছু নেই আগে এগোন যেতে পারে অনায়াসে।
মানব বাবুঃ কিরে ভাবতে পারছিস। ভাব তুই কাউকে ভালবাসিস। আর তার শরীর তা নিয়ে কেউ খেলা করছে। ওই যেমন হয় আর কি। বুঝতে পারছিস তো। কেমন লাগছে তোর। আমায় উত্তর দে, আমি তারপর বাকি গল্প তা বলছি।
কিছুক্ষন চুপ করে থাকার পর সুবীর বাবু উত্তর দেন “প্রচণ্ড উত্তেজনা হচ্ছে, তুই বুঝিস ই তো”। ব্যাস মানব বাবু বুঝে গেলেন আজ উনি আর খালি হাতে ফিরে যাবেন না। কিছু অন্তত প্রসাদ পাবেন ই পাবেন। শুধু এটাই মেন মুস্কিল কাজ ছিল।
মানব বাবুঃ হা এবার বাকি গল্প তা শোন। পরের দিন অফিস এ হথাত সৌম্য এসে হাজির হয়। আমায় দেখে ও বলে দাদা কাল বাড়ী তে গেছিলেন বউ বলল। দাদা এবার থেকে খাওয়া দাওয়া তা দুপুরে আমাদের বাড়ী তেই করবেন। আমরা থাকতে আপনি কেন হোটেল এ খাবেন। আমি রোজ দুপুরে ওদের বাড়ীতে যেতে শুরু করি। সৌম্য যেত না। ও টিফিন বক্স এ খাবার নিয়ে আসতো। আর রোজ দুপুরে আমি ২-৩ ঘণ্টার জন্য সুমিতার শরীর তা নিয়ে খেলা করতাম। সৌম্য কখনো আমায় সন্দেহ করেনি। আমি অফিস এ ফিরে দেখতাম সৌম্য নেই। ও আরও ১ ঘণ্টা পরে আসতো। ওর বউ এর সাথে রোজ শুই তাই ওকে বকতেও পারতাম না। এরকম ই একদিন আমি ওর বাড়ী যাচ্ছি, হথাত রাস্তায় আমার এক পুরনো বন্ধুর সাথে দেখা। ওর সাথে কথা বলতে বলতে প্রায় ১০ মিনিট হয়ে গেলো। তারপর যখন গাড়ী স্টার্ট করছি দেখি সৌম্য আমায় ক্রস করছে। রোজ দুপুরে ও কোথায় যায় তা দেখার জন্য আমি ওকে ফলো করি। দেখি ও বাড়ীর রাস্তাতেই যাচ্ছে। ও বাড়ীতে ঢুকল। আমি দূরে দাঁড়িয়ে থাকলাম। প্রায় ৫ মিনিট পর আমি ওর বাড়িতে ঢুকলাম, ভাবলাম আজ শুধু খাওয়াই হবে আর কিছুই হবেনা। কিন্তু ওর বাড়ীতে ঢোকার পর রোজকার মতো সেদিন ও আমায় সুমিতা জড়িয়ে ধরে আদর করতে লাগলো। আমি ভয় পেয়ে গেছিলাম কারন আমি জানি ঘরের মধ্যেই সৌম্য আছে। কিন্তু ও আমায় না ছাড়তে আমিও বেশি ভাবলাম না। ওকে মাটিতে ফেলে আদর করতে শুরু করলাম। মাঝে আমার চোখ তা গেলো ভেতরের ওই অন্ধকার ঘরটায়। কেউ একটা ওখানে বসে কাঁপছে। আমি এক লাফে ঘরটায় ঢুকলাম জানিস কি দেখলাম?
সুবীর বাবুর মুখে কোনও কথা নেই।
মানব বাবুঃ ওখানে ঢুকে আমি দেখি সৌম্য পুরো উলঙ্গ হয়ে নিজের ধন তা ধরে আমায় আর সুমিতা কে দেখে উত্তেজনা ভোগ করছে। আমার সামনে পড়তে খুব ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেলো। কিন্তু কি অদ্ভুত পেছন থেকে সুমিতা বলে উঠল দাদা ভালো হয়েছে আপনি সব জেনে গেছেন, আর লুকোচুরির কোনও ব্যাপার নেই। দাদা এটা আমাদের একটা ফ্যান্টাসি রোজ রাতে শুতে শুতে জীবন তা খুব একঘেয়ে হয়ে উথেছিল। অনেক ভেবে এই নতুন আইডিয়া তা আমরা আনলাম।
সুবীর বাবু হা করে তাকিয়ে থাকলেন।
সুবীর বাবুঃ কি বলছিস রে মানব। নিজের বউ কে এভাবে অন্যের হাতে তুলে দিয়ে আনন্দ।
মানব বাবুঃ তুই কি সত্যি ই এটা জানিস না। আমার খুব অবাক লাগছে, তুই তো বিবাহিত। আমি না হয় অবিবাহিত তাই এসব আবেগ কখনই বুঝিনা। আচ্ছা তোর আমাদের ওই রাজীব আর সঞ্জয় কে মনে আছে আরে ওই পাশের স্কুল এর ১ম ২য় বয়। দুজনেই লন্ডনে থাকে। জানিস ওরা প্রতিদিন নিজেদের বউ কে বদল করে, আর ওদের বউরাও এগুলো খুব এনজয় করে।
সুবীর বাবুঃ তুই কি বলছিস রে। আমার কেমন একটা লাগছে।
মানব বাবুঃ ভালো তোর ও লেগেছে সুবীর। তোর এই ঘন ঘন নিঃশ্বাস তার ই প্রমান দিচ্ছে। প্রথম তা এটা হয়, তারপর আসতে আসতে সব রক্ষনশীলতা দূর হয়ে যায়।
সুবীর বাবুঃ এগুলো কি সত্যি ই হয়। আমি তো কখনই শুনিনি।
মানব বাবুঃ আরে এগুলো কেউ কাছের বন্ধু ছাড়া অন্য কারুর কাছেই শেয়ার করেনা। তোর কাছের বন্ধু কে? আমি। আবার আমি অবিবাহিত। তাই তুই ও বলিসনি আমিও বলিনি। আজ বললাম। এবার বল ভালো লাগছে তো এগুলো শুনে।
সুবীর বাবুঃ হা খুব ভালো লাগছে রে। শরীরে বিশাল উত্তেজনা হচ্ছে। জানিস তো একটা কথা তোকে বলছি বলিস না কাউকে। মেয়েদের পরাশুনার জন্য আমরা প্রায় ১ টা বছর এক সাথে শুইনি। জানিস আজ আমরা প্রায় ১ বছর পর আবার একসাথে শোব।
মানব বাবুঃ তুই আমার নিজের ভাই এর মতো তাই বলছি এবার থেকে একটু সেক্স তেক্স কর। বউদির ও তো একটা ইচ্ছে বলে রয়েছে।
সুবীর বাবুঃ তুই ঠিক ই বলেছিস রে। কিন্তু জানিস তো বয়স হয়েছে আজকাল শরীর আর আগের মতো নেই। আর তুই জানিস তো ওর আর আমার বয়সের অন্তর প্রায় ১০ বছর। ওর এখনো ভরা যৌবন।
মানব বাবুঃ আরে ধুর পাগল, বয়স শরীর এসব কিছু হয়না রে। শুধুই মন। মনের ওপর সব নিরভর করে। ছার তোকে এসব বলবনা এখন ভালো লাগছে খুব কারন নেশা হয়েছে। কিন্তু নেশা টা কাটলে দেখবি আমায় ভুল বুঝেছিস।
সুবীর বাবুঃ না ভাই প্লিজ বল, প্লিজ আমায় বল।(মানব বাবুর দুহাত শক্ত করে চেপে ধরে খুব কাকুতি মিনতি করতে করতে) তুই জানিস মানব আমদের মধ্যে সেই অর্থে দাম্পত্য জীবন হয় ই নি। যমজ মেয়ে হোল আমাদের। অদেরকে এক সাথে রাখা জেতনা। ভীষণ বদমাশি করত। ওদের জন্মের পর সপ্তাহে ১ দিন তারপর মাসে ১ দিন আর এখন বছরে ১ দিন। বুঝতে পারছিস তো আমার কষ্ট টা।
লোভে মানব বাবুর চোখ টা চক চক করে উঠল। আজ সব কিছু ওনার মনের মতই হচ্ছে। আসল দুর্বল জায়গা গুলো উনি ধরে ফেলেছেন। এবার শুধু দরকার পায়ে বল টা নিয়ে সোজা গোলে মারা।
সুবীর বাবুঃ আমার প্রচুর ভয় লাগেরে এখন কিছু করতে। জানিস তো শরীর খুব দুর্বল হয়ে গেছে। ভিয়াগ্রা রোজ রোজ নেওয়া ঠিক নয়। মেয়েরা বাইরে চলে গেলে তোর বউদি রোজ রোজ আমায় ভালবাসতে চাইবে কি করি বল না ভাই।
মানব বাবু তাকিয়ে দেখেন সুবীরের দুই চোখ ছল ছল করছে। মনে মনে বললেন একবার প্রায় ২০ বছরের তপস্যা আজ পূর্ণ হতে চলেছে। আজ আমি মালতী কে নিয়ে খেলা করব ভোর হওয়ার আগে ওকে ছাড়ছি না।
মানব বাবুঃ আরে পাগল এভাবে ভেঙে পরে কেউ। আমি আছি তো। তুই আগে আমার সাথে এগুলো শেয়ার করতে পারতিস। শোন পাগল শরীর দিয়ে সেক্স হয়না হয় মন দিয়ে। মনে যত উত্তেজনা তত সুখি দাম্পত্য জীবন। তাহলে তোকে কি করতে হবে উত্তেজনা নিয়ে আসতে হবে। আর উত্তেজনা কি করে আসবে তোকেই রোজ রোজ কিছু উত্তেজক মুহূর্ত তৈরি করতে হবে। মন দিয়ে শুনবি কিন্তু।
সুবীর বাবুঃ হা রে আমি মন দিয়েই শুনছি। কিন্তু এরকম উত্তেজক মুহূর্ত আমি তৈরি কি করে করব।
মানব বাবুঃ এটা সম্পূর্ণ ভাবে তোর ওপর নিরভর করছে। জাস্ট একবার সৌম্য আর সুমিতার ব্যাপার টা ভাব। ওদের সংসারে এত অনটন এত কষ্ট কিন্তু সেক্স এর ব্যাপারে ওরা এউরপিয়ান দের ও টেক্কা দেয়। উত্তেজক মুহূর্ত তৈরি করতে ওরা ঠিক কি পরিমান রিস্ক নেয় সেটা ভেবে দেখ। ওই পরিমান রিস্ক না আমি কখনো নিতে পারব না তুই নিতে পারবি। কিন্তু ভাবতে তো পারবি। ভাবতে ক্ষতি কি। বাস্তব জীবনে নিজেকে না হয় সৌম্য দের মতো করলিনা। কিন্তু চোখ বন্ধ করে ভাবতে তো পারিস একবার যে তুই ও সৌম্য।
সুবীর বাবুঃ আমি কিছুই বুঝতে পারছিনা আমায় একটু ভালভাবে বল প্লিজ।
মানব বাবুঃ আচ্ছা ঠিক আছে আমায় একটু সময় দে আমি সব ভেবে তোকে বলছি। তুই একটু চোখ বুজে পরে থাক।


Reply
#18
পর্ব ১৬- সুবীরের উত্তেজনাঃ
মানব বাবুঃ সুবীর আমার পাশে এসে বস। তুই মনে মনে একজন এর কথা ভাব যে তোর প্রচণ্ড কাছের লোক। এবার ভাব একটা ছোট দুর্ঘটনা টাইপ এর হয়েছে। মানে এটা বলছি যে তোর কোনও এক বন্ধু তোর বাড়ীতে এসেছে, বউদি নিজের অজান্তেই তাকে সিদিউস করে ফেলেছে ব্যাস এততুকুই। জাস্ট এটাই তুই ভাব দেখবি এমন উত্তেজনা হচ্ছে জীবনে কখনো যা তুই অনুভব করিস নি।
সুবীর বাবুঃ কি যা তা বলছিস। এরকম আমি কখনো ভাবতেই পারব না।
মানব বাবুঃ কি করে তোকে বোঝাই বল তো। আচ্ছা আগে তোর একটা বন্ধুর নাম তো বল যাকে তুই এই অবস্থায় দেখতে চাস। আর ভাই একটা সিরিয়াস কথা বলছি তোকে। তুই আমায় এত কিছু কষ্টের কথা বললি তাই আমি তোকে এসব বলছি। মনে রাখিস সকালে যখন নেশা কেটে যাবে তখন রাতে যা হোল তা তুইও ভুলে গেছিস আর আমিও। মনে কিন্তু কিছুই রাখবি না।
সুবীর বাবুঃ দেখ আমার তো একজন ই বন্ধু সেটা তুই। আর তুই নিশ্চিন্তে থাক আমি ভুল বুঝবো না।
মানব বাবুঃ এবার একটা কথা বলছি, শুনতে খারাপ লাগবে হয়ত কিন্তু প্লিজ কিছু মনে করিস না। মনে কর আমি লুকিয়ে লুকিয়ে বউদির ওপর নজর রাখি। বউদি তা জানেনা। ভাব বউদি হয়ত কাপড় চেঞ্জ করছে, ওই ভেতরের কোনও ঘরে। আমি লুকিয়ে লুকিয়ে বারান্দার নীচের অন্ধকার থেকে দেখছি কিন্তু বউদি কিছুই বুঝতে পারছে না। এদিকে তুই সব ই দেখতে পাচ্ছিস কিন্তু আমায় কিছুই বলতে পারছিস না। তারপর যে যার রুম এ। বউদি যখন তোকে জড়িয়ে ধরবে দেখবি তোর বারবার এটাই মনে হবে যে আমি কিভাবে লুকিয়ে বউদির আপত্তিকর অবস্থা তা দেখছিলাম। বারবার তোর এটাই মনে হবে, দেখবি কি বিশাল উত্তেজনা আর তুই আবার ২৫ এর যুবক হয়ে গেছিস। বুঝলি কিছু।
সুবীর বাবুঃ আমার উত্তেজনা তো হচ্ছে। কিন্তু এটা অবাস্তব।
মানব বাবু চুপ করে থাকলেন, কোনও উত্তর দিলেন না। এদিকে মালতী দেবী কে দেখা গেলো হাতে ওই ব্যাগ তা মানে যাতে মানব বাবুর কাপড় গুলো আছে সেটা নিয়ে বাথরুম এর দিকে যেতে, যাওয়ার সময় একবার এদিক টায় উনি তাকালেন। সুবীর ও মানব বাবুর নজর ও ওদিকেই গেলো।
মানব বাবুঃ (সুবীরের দু হাত ধরে) ভাই আজ তোকে আমি তোর জীবনের সেরা উপহার টা দিতে পারি। এমন একটা স্মৃতি আমি তোকে উপহার দেব যে তুই যতবার ই বউদির সাথে বিছানায় শুবি তুই এই ঘটনা তাই মনে করবি। আর প্রতিবারে তোর বয়স এক লাফে ২৫ হয়ে যাবে।
সুবীর বাবুঃ কি বলছিস তুই আরও ভালো করে বল।
মানব বাবুঃ সুবীর চল একটা খেলা খেলি আজ। তুই আর আমি ছাড়া কেউ তা জানবে না। আমি যাই করিনা কেন তুই আমায় লক্ষ্য করবি। আর এমন ভাবে লক্ষ্য করবি যেন তুই লুকিয়ে আমায় দেখছিস আর আমি কিছুই বুঝতে পারছিনা। তোর বউ খুব সুন্দরী রে। যেকোনো মানুষ কেই আকর্ষণ করতে পারে। তুই জানিস বউদি আমার দেওয়া প্যাকেট তা নিয়ে ওদিকে কি করতে গেলো। ও ড্রেস চেঞ্জ করবে। আমি তা দেখেছি। আমার জায়গায় যেই থাকুক স্বাদ একবার হবেই বউদির শরীর তা দেখতে। আমি চললাম ওদিকে। তুই কিছুই জানিস না। আমি ওখানে অন্ধকারে কি করছি তা দেখতে তুই ওখানে যাবি আর আবিষ্কার করবি আমি তোর বউকে লাংটো অবস্থায় দেখছি আর উত্তেজনায় কাঁপছি।
এবার সুবীর বাবু উত্তেজনায় সত্যি ই কাঁপতে লাগলেন। আর শুধু উত্তেজনা কেন একটা দ্বিধা ভয় রাগ মানুষের যতগুলো রিপু থাকে একসাথে সব গুলই কাজ করতে শুরু করে দিল। মানব বাবু উঠে দাঁড়িয়েছেন, সুবীর বাবুর দিকে ইশারা করে উনি বারান্দার দিকে যেতে শুরু করেছেন। সুবীর বাবু আজ জীবনে সবচেয়ে বেশি মদ্যপান করেছেন। শরীর মন কোনটার ই ওপর ওনার আর কন্ট্রোল নেই। যৌনতা বা নিষিদ্ধ যৌনতা, উত্তেজনা এই সব কে ছাপিয়ে রাগ বা ক্রোধ রিপু টাই সুবীর বাবুকে বেশি কন্ট্রোল করছে। পুরনো বন্ধুর সাথে নেশার ঘোরে এতক্ষন জীবনের অন্তরঙ্গ মুহূর্ত গুলো উনি প্রকাশ্যে আলোচনা করে ফেলেছেন। কিন্তু এই মুহূর্তে ওনার মধ্যে একটা প্রফেসর ইগো বা উচ্ছমেধার ইগো জেগে উঠেছে। মানব বাবু প্রায় বারান্দা তার কাছাকাছি পৌঁছে গেছেন। বারান্দার ওখানটায় গ্রীল দিয়ে চারপাশ তা ঘেরা। মানব বাবু হাঁটুর ওপর ভর দিয়ে মাটিতে এমন ভাবে বসলেন যাতে ওনার শরীর তা লুকিয়ে থাকে কিন্তু দুই চোখ আর তার ওপরের অংশ তা বেরিয়ে থাকে। মানব বাবুর গায়ে একটু হলেও লাইট পড়ছে, টাই ওনার প্রতিটি অঙ্গভঙ্গি চোখের চলাফেরা সব ই সুবীর বাবু দেখতে পাচ্ছেন। মানব বাবু ওপরের দিকে তাকাতেই মুখ দিয়ে একটা উহহ বলে শব্দ বেরল যেটা সুবীর বাবুও বুঝলেন। আর সাথে সাথে মানব বাবুর হাত তা নিজের প্যান্টের জিপ এ পৌঁছে গেলো। সুবীর বাবু আর বসে থাকতে পারলেন না। উনি টলতে টলতে সামনের দিকে এগিয়ে চললেন। এক মুহূর্তের জন্য উনি ভাবলেন এ আমি কি করছি আমার বউ কে দেখে আমার ই বন্ধু... আর আমি ওখানেই যাচ্ছি। উনি আসতে আসতে বাঁদিক টায় সরে কুয়ো তার পেছনে দাঁড়ালেন, ওখান থেকে বাথরুম এর সামনে তা আর বারন্দা টা দুটো ই পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে। সবার আগে সুবীর বাবুর চোখ গেলো মালতী দেবীর দিকে। মালতী দেবী তখন সবে মাত্র পুরনো সাড়ী টা খুলেছেন। এবার ওনার চোখ গেলো মানব বাবুর দিকে মানব বাবুর বাঁ হাত টা প্রচণ্ড জোরে নড়ছে। আর সেই একি স্পীড এ সুবীর বাবুর হৃৎপিণ্ড তাও ধুকপুক করছে। মালতী দেবী এবার আসতে আসতে ব্লাউজ এর হুক গুলো খুলে হাতের দুপাশ দিয়ে ব্লাউজ টা খুলে নিচে ফেলে দিলেন। মালতী দেবীর বিশাল দুটো দুধ সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে আছে আর মানব বাবুর হাত টা আগের থেকে আরও অনেক জোরে নড়ছে। এরপর উনি সায়ার দড়ি টা ধরে একটা টান দিলেন আর সায়া টা নীচের দিকে পরে গেলো। এরপর প্যাকেট থেকে নতুন সায়াটা বার করে পরে নিলেন আর ব্রা টা বার করে হাত গলিয়ে দিলেন।
ঠিক এই সময়েই মানব বাবু খুব সন্তর্পণে ওখান থেকে উঠে আবার খাটিয়ার দিকে যেতে শুরু করলেন। আর ওনার দেখাদেখি সুবীর বাবুও বন্ধুর পিছু নিল। সুবীর বাবু মানব বাবুর পাশে বসে লক্ষ্য করলেন মানব বাবুর প্যান্টে তাঁবুর মতো উঁচু হয়ে আছে আর ও তখন ও হাপাচ্ছে।
মানব বাবুঃ তুই কিন্তু আমায় কথা দিয়েছিলি সুবীর তুই রাগ করবি না। আমি কিন্তু তোর পারমিসন নিয়েই সব করেছি।
সুবীর বাবুঃ না আমি রাগ করিনি।
মানব বাবুঃ আমি জানি সুবীর তোর খুব রাগ হয়েছে। কিন্তু একবার ভেবে দেখ যা হোল তাতে কারুর কি কোনও ক্ষতি হোল। আর তুই জানিস না আজ তুই কি পেলি। দেখবি এবার তোর সেক্স লাইফ এর কি উন্নতি হবে।
কথা শেষ হতে না হতেই মালতী দেবী এদিকে এগিয়ে আসতে লাগলেন।
মালতী দেবীঃ মানব দা তুমি চেয়েছিলে আমি এটা পড়ি তো আমি পড়েছি। এবার লক্ষি ছেলের মতো তোমরা গিয়ে শুয়ে পরো। আমি বাসন গুলোতে একটু জল দিয়ে আসছি। আমি তোমাদের বিছানা করে দিয়েছি।
মানব বাবুঃ বউদি আজ তোমায় যা লাগছে আমি এত সুন্দর জীবনে কখনো তোমায় দেখিনি।
মালতী দেবী শুধুই খিল খিল করে একবার হাসলেন। এদিকে সুবীর বাবুর গায়ের লোম খাড়া হয়ে যাচ্ছে মানব বাবুর এই রকম ডুআল মিনিং এর কথায়।
মালতী দেবীঃ কবে আর আমায় দেখতে বাজে লাগে তোমার শুনি? এই মিথ্যে মিথ্যে কথা গুলো বলা প্লিজ বন্ধ করো।
মানব বাবুঃ বিশ্বাস করলে না তো। আজ সত্যি ই তোমায় খুব সুন্দর লাগছে। তুমি যে সুন্দরী তা গোটা পৃথিবী ই জানে। কিন্তু তুমি ঠিক কতটা সুন্দরী তা আজ ই প্রথম আমি দেখলাম। সুবীর সব জানে।
মালতী দেবীঃ ঠিক আছে থ্যাঙ্ক ইউ। কিন্তু প্লিজ এবার তোমরা ভেতরে যাও। প্রায় ১২ টা বাজে। পরশু ভোর বেলা ওদের বেরিয়ে যেতে হবে। কাল অনেক কাজ সারাদিন। (সুবীর বাবুর দিকে তাকিয়ে) আচ্ছা রূপসা টা কেমন মেয়ে বলতো। কলেজ এ ভর্তি হতে যাওয়া তো তিলত্তমার, ওর তোমাদের সাথে যাওয়ার কি দরকার।
এবার মানব বাবুর চোখ টা আবার চক চক করে উঠল। চোখের সামনে বিশাল দুটো দুধ আর কালো চুলে ঢাকা সেই উত্তেজক উপত্যকা টা ভেসে উঠল।
সুবীর বাবুঃ থাক না। দেখে আসুক না। আবার রূপসা যখন ভর্তি হবে তখন তিলোত্তমা ও যাবে। মেয়ে দুটো সারাক্ষন একসাথে থাকতো এতদিন পর আলাদা হয়ে যাচ্ছে, যাক রূপসা যাক। তোমাকে দিদির কাছে পাঠিয়ে দেব।
মালতী দেবীঃ আরে এখানেই তো মুস্কিল টা হয়েছে। রূপসা ফোন করেছিল কিছুক্ষন আগে। দিদির ভাসুরের প্রচণ্ড শরীর খারাপ ওরা কাল ভোরেই বর্ধমান যাচ্ছে। এই মুহূর্তে তো ওদের বলা ঠিক নয়। রূপসা আর তিলোত্তমা কাল সকালেই চলে আসবে।
সুবীর বাবুঃ তাহলে রূপসার যাওয়ার দরকার নেই।
মানব বাবুঃ তুই কি রে। মেয়েটার শখ হয়েছে যাক না। আমি তো আছি। তোদের বিপদে পাশে না থাকলে কাদের পাশে থাকব। তুই দুদিনের জন্য যাচ্ছিস তো। এই দুদিনে আমার ব্যবসার কোনও ক্ষতি হবে না। আর রোজ রোজ হোটেলের খাওয়ার খেতে ভালো লাগে না। বউদির হাতের খাওয়ার ও খেতে পারব।
সুবীর বাবু “কিন্তু” বলে কিছু বলতে যাচ্ছিলেন, মালতী দেবি ওনাকে থামিয়ে দিলেন
মালতী দেবীঃ সেই ভালো মানব দা, তুমি থাকো। হবু কাউন্সিলার কে হাতে রাখতে হবে তো। আর রূপসা যা জেদি ওকে যেতে না দিলে বাড়ীতে আমার অবস্থা খারাপ করে দেবে।
সুবীর বাবু কিছুই বলতে পারলেন না। মালতী দেবী ভেতরে চলে গেলেন। মানব বাবু একটু হেসে আবার বললেন
মানব বাবুঃ সুবীর পুরো উত্তেজনা টাই তো নষ্ট হয়ে গেলো। নতুন একটা খেলা খেলবি নাকি। পরশু তো চলেই যাবি একটা নতুন খেলা খেলি চল।
সুবীর বাবুর আর ভালো লাগছেনা একে নেশা তার ওপর ক্লান্তি। একটু শুতে পারলে ভালো হয়।


Reply
#19
পর্ব ১৭- মানবের খেলাঃ
সুবীর বাবুঃ আরে মানব ছার না। আর ভালো লাগছে না। তুই তো জানিস আমি কখনো এতোটা মাল খেতে পারিনা। তোকে হতাশ করব না বলে আজ পুরটাই খেলাম। তুই তো বুঝিস আমার শরীর এই মুহূর্তে কি অবস্থা হয়েছে।
মানব বাবুঃ আচ্ছা তুই ভেতরে চল। শুয়ে শুয়ে তোকে সব বলব। চল কিছু হবেনা। দেখবি যা হবে তুই টা জীবনে কোনদিন ভুলতে পারবি না।
সুবীর বাবু আর মানব বাবু দুজনেই ভেতর দিকে যেতে লাগলেন। ওনাদের টলতে টলতে আসা দেখে মালতী দেবী খিল খিল করে হেসে এগিয়ে এলেন।
মালতী দেবীঃ তোমাদের যা লাগছে না এই মুহূর্তে কি বলবো। যাও দুজনে সুয়ে পরো। আমি বাসন গুলো ধুয়ে আসছি।
মানব বাবু একবার পেছন ঘুরে দেখলেন মালতী দেবি কে। ওনার পাছা দুটো থল থল করে নড়ছে। ওই দুটো পাছা কোমরের কাছের ওই তিল টা সব ই মানব বাবু মিনিট দশেক আগে দেখেছেন। মানব বাবুর মন এই দেখাতেই আজ আর সন্তুষ্ট থাকবে না। এর আগেও উনি ২-৩ বার মালতী দেবী কে নগ্ন অবস্থায় দেখেছেন কিন্তু ব্যস ওই দেখা অবধি ই। আজ যাই হয়ে যাক একটা বার অন্তত একটা বার উনি মালতী দেবী কে স্পর্শ করতে চান। তার জন্য যতই কৌশল অবলম্বন করতে হয় হোক।
এদিকে সুবীর বাবু আসতে আসতে নিজের ঘরতার দিকে যাচ্ছেন দেখে মানব বাবু পেছন থেকে একটা টান মারলেন।
সুবীর বাবুঃ বিশ্বাস কর মানব আজ আর পারছিনা। আমি এবার ঘুমাব।
মানব বাবুঃ আরে ঘুমাবি ই তো। আয় না আমার রুম টায়। তুই শুয়ে থাকবি আমি কথা বলবো।
সুবীর বাবু টলতে টলতে যে ঘরটায় মানব বাবুর শোয়ার ব্যাবস্থা হয়েছে সেখানে ঢুকে গেলেন আর বিছানায় শুয়ে পড়লেন। মানব বাবুর চোখ টা চক চক করতে শুরু করল। মানব বাবু ঢুকে ওর পাসে বসলেন।
মানব বাবুঃ চল আমরা একটা নতুন খেলা শুরু করি।
সুবীর বাবুঃ না আমি ঘুমাব।
মানব বাবুঃ ঠিক আছে ঘুমিয়ে ঘুমিয়েই খেল। খেলা টা খুব মজার। দেখ সুবীর আমাদের হাইট এক, শরীর তাও এক। আমি সামন্য একটু বেশি ই মোটা তোর চেয়ে। দেখ দুটো ঘরেই নাইট বাল্ব জলছে। শুধু বারান্দা টায় আলো জ্বলছে বলে আমাদের চেনা যাচ্ছে। দাড়া আমি বারান্দার আলো টা অফফ করে দি।
মানব বাবু বারান্দার লাইট টা অফফ করে একবার কুয়ো পারে দেখলেন। মালতী দেবী বাসন ধুচ্ছিলেন উনি তাকালেন, মানব বাবু বলে উঠলেন গুড নাইট বউদি। ওপাশ থেকে মালতী দেবী ও গুড নাইট বললেন। উনি আবার টলতে টলতে (ভান করে) ভেতরের ঘরটায় ঢুকে শুয়ে পড়লেন একদম সুবীর বাবুর পাশে। আর এটা মালতী দেবী লক্ষ্য ও করলেন। এবার আবার সুবীর বাবুর দিকে তাকালেন মানব বাবু। সুবীর বাবু ততক্ষনে চোখ বুজে ফেলেছেন।
মানব বাবুঃ এবার খেলা টা শুরু। আমি একটা টি শার্ট আর জিনস পরে আছি। ওটা তুই পর। তুই খালি গায়ে বারমুন্দা পরে আছিস ওটা আমি পড়ি। ব্যাস এটাই খেলা। দেখবি এই খেলা টা তুই জীবনেও ভুলবি না। আর এটাই তোকে আলাদা একটা উত্তেজনা দেবে।
সুবীর বাবুঃ তোর যা ইচ্ছে করার কর। আমি এবার ঘুমাব।
মানব বাবু বুঝলেন এবার সুবীর বেহুঁশ হচ্ছে। উনি ওর বারমুন্দা টা টেনে খুলে দিলেন। নিজেও প্যান্ট আর জামাটা খুললেন। মুহূর্তের মধ্যেই উনি সুবীর বাবুর পোশাক আর ওনাকে নিজের পোশাক টা পড়িয়ে দিলেন। এবার সেই সময়। একবার তাকালেন সুবীর বাবুর দিকে, হা উনি বেহুঁশ। মানব বাবু রুম থেকে বেরিয়ে মুখটা কিছুটা লুকিয়েই টলতে টলতে ওদের ঘরটায় গিয়ে শুয়ে পড়লেন। মালতী দেবী এটা লক্ষ্য করলেন কিন্তু ওনার চোখে কোনও আলাদা কিছু নজরে পড়ল না। মানব বাবু জানেন আজ ওনার কাছে যা সুযোগ আছে তা অদুর ভবিষ্যতে আর কোনদিন ই আসবেনা। মানব বাবু পায়ের কাছে থাকা চাদর তা টেনে গায়ে ঢাকা দিয়ে দিলেন। মালতী দেবীর কাজ শেষ হতে আর ও আধ ঘণ্টা। মালতী দেবী একটা জিনিস লক্ষ্য করেছেন যে অন্যদিন এতটা মদ খাওয়ার পর সুবীর বাবু অনেক আগেই বেহুঁশ হয়ে জান কিন্তু আজ উনি অনেক অনেক ঠিকঠাক আছেন, অর্থাৎ আজ উনি জেভাবে হোক মালতী দেবীর মন তাকে রঙিন করে তুলবেন। আর এইসব ভাবতে ভাবতে মালতী দেবীর ও মনে একটা তীব্র যৌন খিদে জ্বলে উথছে। উনি জানেন আজ দীর্ঘ ১ বছরের অপেক্ষার অবসান।
ওদিকে আজ বাড়ীর বাইরের খাটিয়ায় বসে সাইদুল আর রাজু অনেক কিছু প্ল্যান করে ফেলে। রাজুর মনে আগুন জ্বলছে। কিছুক্ষন আগে মালতী দেবী আর মানব বাবুর মদ্ধে যে কথাবার্তা ও দেখেছে যা ও শুনেছে তা অর মনে উচ্চ শ্রেনীর প্রতি ঘৃণাটা এক লাফে অনেকটাই বারিয়ে দিয়েছে। রাজুর সাথে তিলোত্তমার অনেক ক্ষন কথা হয়েছে। রাজু তিলত্তমাকে ওর বাড়ীতে আমন্ত্রন জানিয়েছে। তিলোত্তমা হাজার ও ব্যস্ততার মদ্ধেও কাল যাবেই ওখানে এটা তিলোত্তমা, রাজু ও সাইদুল তিন জনেই জানে। কাল সাইদুল ও থাকবে ওখানে তবে লুকিয়ে ও সব ই দেখবে। রাজুর মনে বন্য কামনার আগুন জ্বলছে। বহুবার বাসে মেট্রোতে ও তিলোত্তমার বাইরে বেরিয়ে আসা মাঝারি মাপের দুধ গুলো দেখেছে, ওর সাদা ব্রা বা টেপ এর হুক গুলো যখন ই কাধের দুপাশে বেরিয়ে এসেছে তখন ই ও তা একদৃষ্টিতে লক্ষ্য করেছে। ও জানে তিলোত্তমা এখন ও পুরুষ স্পর্শ কি তা শেখেনি, একবার যদি ওর মদ্ধে এই নেশা তা ধুকিয়ে দেওয়া যায় তাহলে ও নিজেই একটা দিন দৌড়ে রাজুর বাড়ীতে আসবে শুধু রাজুর শরীর তাকে পাওয়ার জন্য। সাইদুল কে রাজু অনেক রকম টিপস দিয়েছে। কালকের দিনটা সাইদুলের ও জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। সাইদুল ঠিক করেছে রাজু যেমন তিলোত্তমা কে নিয়ে খেলা করবে ঠিক সেরকম ই ও রূপসা কে নিয়ে খেলা করবে। রূপসার মন ও কিভাবে জয় করবে তার সমস্ত প্ল্যান ই হয়ে গেছে। কাল সকালেই রূপসা চলে আসছে। ওরা বেরবে হয়ত সন্ধ্যের দিকে, তার আগেই রূপসার কাছাকাছি চলে যেতে হবে সাইদুল কে। ওরা দুজনেই নিজেদের প্ল্যান ঠিক করে নিয়ে শুয়ে পরে।
এদিকে মালতী দেবীর কাজ প্রায় শেষের পথে। সুবীর বাবুর আর কোন হুঁশ নেই। উনি গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন। মানব বাবু অপেক্ষা করে রয়েছেন পাশের রুম তায়। আর এই অপেক্ষা তা দীর্ঘ ২০ বছরের অপেক্ষার চেয়েও কথিন। কিছুক্ষন আগেই উনি মালতী দেবীর নগ্ন নধর দেহ তাকে দেখেছেন। একটা সময় মানব বাবুর মনে হত মালতী দেবী হয়ত আর আগের মত সুন্দরী নেই। বয়সের ভারে তার শরীর হয়ত অনেকটাই ঝুলে গেছে। কিন্তু আজ মালতী দেবীর নগ্ন দেহটা ওনার মনের সমস্ত ভুল গুলোকে সরিয়ে দিয়েছে। মানব বাবু বুঝেছেন মালতী দেবী আগের চেয়েও বেশি সুন্দরী হয়েছেন। আগে শরীরে মেদ ছিলনা। কিন্তু এখন কোমরের আর পাছার কাছে মেদ জমে শরীর তাকে আর ও বেশি আকর্ষণীয় করে তুলেছে। আর শরীর তা দেখে বোঝা যায় যে ওনাদের যৌন জীবন তা বড্ড বেশি ডুমুরের ফুলের মত। তাই হয়ত এই ৩৬-৩৭ বছরে উনি জীবনের সেরা সৌন্দর্য তা পেয়েছেন, যা এই বয়সি অন্য যেকোনো মহিলার ক্ষেত্রে সম্ভব নয়।
মানব বাবুর শরীর তা চাদরে ঢাকা থাকলেও চোখ দুটো স্থির দৃষ্টি তে বারান্দার দিকে রয়েছে। কখন মালতী দেবী আসবেন ও ওনার শরীরের ওপর ঝাপিয়ে পরবেন সেই অপেক্ষাতেই মানব বাবু রয়েছেন। হয়ত মালতী দেবী ভোর হওয়ার আগে বুঝবেন ই না যে এটা মানব সুবীর নয়। ভোরের আলো যখন অল্প অল্প করে ঘরের মদ্ধে ধুকবে মালতী দেবী তখন উলঙ্গ হয়ে নিজের মাথাটা মানব বাবুর বুকে চেপে শুয়ে আছে। সূর্যের কিরণে যখন বাধ্য হয়ে মালতী দেবী ঘুম থেকে জেগে উঠবেন মানব বাবুকে অই অবস্থায় দেখে চমকে উঠবেন। হয়ত লজ্জায় প্রথমে দু হাত দিয়ে মুখ ঢাকা দেবেন ও তারপর জিভ তা বার করে মুচকি হেসে মাটিতে পড়ে থাকা কাপড় গুলো কুড়িয়ে নেবেন। মানব বাবু যতই এইসব ভাবছেন ওনার ধন ততই শক্ত হয়ে যাচ্ছে আর গভীর উত্তেজনায় ঘন ঘন নিশ্বাস চাদর তাকে উত্তপ্ত করে তুলছে। মানব বাবু অপেক্ষা করছেন কখন মালতী দেবী ঘরে ঢোকেন তার। ওনার অপেক্ষা শেষ হল। দুহাতে বাসন গুলো কে ধরে মালতী দেবী বারান্দায় উথে এলেন। প্রথমে পাশের ঘরটায় দেখলেন তারপর হাতে বাসন নিয়েই নিজের ঘরটার কাছে এসে কিছুক্ষন দেখলেন, কিছু একটা ভাবলেন ও রান্না ঘরের দিকে চলে গেলেন। এদিকে মানব বাবুর হৃৎপিণ্ড তা উত্তেজনায় বুক চিরে বাইরে বেরিয়ে আসতে চাইছে। বহুকষ্টে মানব বাবু নিজেকে কন্ট্রোল করলেন।
রান্নাঘরে বাসন গুলো রেখে দিয়ে মালতী দেবী ধীরে ধীরে শোয়ার ঘরটার সামনে এগিয়ে এলেন। মানব বাবু এবার খুব সাবধান। উনি জানেন সামান্য কোন ভুল ওনাকে মধুকুণ্ড ভোগ করা থেকে বঞ্চিত করতে পারে। মালতী দেবী আবার ওই পাশের ঘরটার দিকে গেলেন। দরজার সামনে দারিয়ে ভেতরের দিকে দেখে দরজাটাকে আসতে আসতে বাইরে থেকে ভিজিয়ে দিলেন। মানব বাবু সব ই দেখলেন আর মনে মনে হয়ত এটাই বললেন যে মাগী টা আজ নিজের গুদে বাড়া ঢোকাবেই টা জেভাবেই হোক না কেন। মানব বাবু বাইরের দিকে তাকিয়ে থাকলেন। প্রায় এক বছর হয়ে গেল স্বামীর ভালবাসা কি হয়, শরীরের খিদে কি হয় তা প্রায় ভুলেই ছিলেন মালতী দেবী। আজ এতদিন পর ওনার শরীরে শিহরণ হচ্ছে, ঠিক যেরকম শিহরণ এক সদ্য যুবতীর দেহে হয়। মনে মনে একবার বললেন ইস যদি আজ মানব দা না আসতেন আর ও অনেক বেশি মজা করা যেত। উনি জানেন সুবীর বাবু আজ মদ খেয়েছেন কিন্তু এটা বিশ্বাস করেন যে যাই হয়ে যাক ওনার মত সুবীর বাবু ও আজ ক্ষুধার্ত। একবার ওনার শরীরের স্পর্শ পেলে আজ সুবীর বাবু সিংহ হয়ে উঠবেন।
সমস্ত ভাবনা চিন্তা কে পেছনে রেখে দিয়ে মালতী দেবী ভেতরে ঢুকলেন এবং দরজা টাকে ভেতর থেকে লক করে দিলেন। মানব বাবুর বুঝতে আর কোন দ্বিধা রইল না যে আজকের রাতে উনি ই সুবীর সেন অন্তত সুবীর সেনের সুন্দরী বউ মালতী সেনের কাছে।


Reply
#20
পর্ব ১৮- মানবের স্পর্শঃ
মানব বাবু চুপ করে পড়ে রইলেন বিছানাতে, উনি জানেন সামান্য কোন ভুল সব শেষ করে দিতে পারে। এদিকে মালতী দেবী আসতে আসতে খাটের একদম কাছে এগিয়ে এলেন। সুবীর বাবু জানেন এই মুহূর্তে মালতী দেবী ওনার চেয়ে বেশি উত্তেজিত। মালতী দেবী একদৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকলেন চাদরে মোড়া পুরুষ মানুষের শরীর তার দিকে। আজ ওনার মনে লোভ জেগে উঠেছে একটু পুরুষ স্পর্শ পাওয়ার। পিঠ থেকে সাড়ী টা টেনে মালতী দেবী বুকের নিচে নামিয়ে দিলেন, আর মানব বাবু চোখের সামনে সুন্দর দুটো বুক কে দেখে উত্তেজনায় কাঁপতে শুরু করলেন। মালতী দেবী নিজের সাড়ী টা খুলে মাটিতে ফেলে দিলেন নিমেষের মধ্যে। উনি জানেন আজ ওনার জীবনের দ্বিতীয় ফুলসজ্জা। কিছুক্ষন ওখানে দাড়িয়ে থাকার পর মালতী দেবী খাটের ওপর বসে ঠিক মানব বাবুর পাশে শুয়ে পরলেন। মানব বাবু জানেন ওনার প্রিয় মালতী বউদি এই মুহূর্তে শুধুই সায়া আর ব্লাউজ পড়ে রয়েছেন।
মালতী দেবীঃ (উম করে একটা শব্দ করে চাদরটা একটু উঠিয়ে চাদরের ভেতর ধুকে গেলেন) তুমি আমায় একফোঁটাও ভালোবাসো না। বাসলে আজ কখনই মদ টা খেতে না। তুমি আমার কথা একদম ভাবনা। ভাবলে কখন এরকম করতে পারতে না।
মালতী দেবী দুহাত দিয়ে মানব বাবুর কোমর টা জড়িয়ে ধরলেন আর নিজের মুখটা মানব বাবুর মুখের কাছে নিয়ে গিয়ে ওনার গালে আলতো করে জিভ আর ঠোট দিয়ে নিজের ভালবাসা প্রকাশ করতে লাগলেন। কিন্তু মানব বাবু জানেন এখনো সথিক সময় আসেনি। উনি চুপ করে পড়ে রইলেন।
মালতী দেবীঃ (এবার একটু জোরে জোরে চুমু খেতে খেতে) তুমি কি সত্যি ই আজ আমায় ভালবাসবে না, আমি কত কিছু ভেবেরেখেছিলাম। তুমি এত কেয়ারলেস, একবার ও ভাবলে না আমার ঠিক কতটা কষ্ট হবে। প্লিজ একটু উথে বস। দেখ আমরা কতদিন একে অপরকে ভালবাসিনি।
কিন্তু মানব বাবু কোন উত্তর ই দিলেন না। উনি জানেন সথিক মুহূর্ত টা ব্যাস এসে গেছে। কিছুক্ষন মালতী দেবী মানব বাবুর দিকে তাকিয়ে থাকলেন তারপর প্রচণ্ড হতাশ হয়ে ওনাকে ছেড়ে দিয়ে পাশে শুয়ে পরতে গেলেন। আর মানব বাবু ঠিক এই মুহূর্ত তার ই অপেক্ষায় ছিলেন। উনি এক ঝটকায় চাদর টা উঠিয়ে নিচে ফেলে দিলেন। মালতী দেবীর কোমরে একটা হাত দিয়ে ওনাকে নিচে ফেলে ওনার অপরে চেপে বসলেন। মালতী দেবী হয়ত বলতে যাচ্ছিলেন ও তুমি জেগে ছিলে তাহলে কিন্তু সেই সুযোগ টা মালতী দেবী পেলেন না। মালতী দেবী মুখ খুলে কিছু বলার আগেই মানব বাবু নিজের দুটো ঠোট মালতী দেবীর ঠোঁটের ওপর চেপে ধরলেন এবং পাগলের মত কিস করতে শুরু করলেন। মানব বাবু জানেন মেয়েরা সামান্য স্পর্শেও নিজের স্বামীকে চিনে যায়। তাই উনি কিছুতেই ওনাকে সুযোগ দিতে রাজি নন। মালতী দেবীর দুহাত দুপাশে জোরে চেপে রাখলেন। এদিকে পুরুষের স্পর্শে মালতী দেবীর শরীরেও নিমেষের মধ্যে আগুন জ্বলে গেল। উনি মুখ দিয়ে উম্ম উম্ম করে শব্দ করতে লাগলেন। মানব বাবুর থেকে হাত দুটো ছারিয়ে নিয়ে ওনার শরীর টা স্পর্শ করতে চাইলেন কিন্তু শেয়ালের মত ধূর্ত মানব বাবু সেই সুযোগ টা ওনাকে দিতে রাজি নয়। নিজের স্বপ্নের রাজকন্যা কে কাছে পেয়ে মানব বাবুর ও মাথা ঝিম ঝিম করতে লাগলো। কখন ও মুখে কখন গালে বা কখন গলায় আদর করে করে উনি মালতী দেবীকে পাগল করে তুললেন। এদিকে মালতী দেবী ও উত্তেজনায় মাথাটা এদিক অদিক করতে লাগলেন। মাথাটা একটু নিচে নামিয়ে ব্লাউসের ওপর থেকেই মানব বাবু মালতী দেবীর বিশাল দুটো দুধকে চুষতে শুরু করে দিলেন। বহুদিন পর স্বামীর আদর পেয়ে মালতী দেবী ও পাগল হয়ে গেলেন, উনি বালিশ থেকে মাথাটা উঠিয়ে ওপর দিকে শরীর টা লাফাতে শুরু করলেন। উত্তেজনার বশে দুটো শরীর ই কাঁপতে শুরু করল। আর হয়ত মানব বাবু ভুলটাও করে ফেললেন। মানব বাবু মালতী দেবীর হাত দুটোকে ছেড়ে দিয়ে ওনার দুধ দুটো গায়ের জোরে টিপতে শুরু করলেন। কামনার আগুনে জর্জরিত হয়ে মালতি দেবী ও নিজের দু হাত দিয়ে মানব বাবুর চুল গুলো টেনে টেনে ওনাকে আদর করতে লাগলেন। প্রচণ্ড উত্তেজনায় দুটো শরীর একে অপরকে ধরে উদ্বেলিত হতে শুরু করল। মালতী দেবীর হাত টা হথাত করেই মানব বাবুর গলার সোনার চেন ও চেনের মদ্ধের লকেট টাকে স্পর্শ করল। মুহুরতের জন্য মালতী দেবী কিছু একটা ভেবে এক ধাক্কায় মানব বাবুকে খাটের ওপাশে ফেলে দিলেন। মানব বাবু জানেন উনি ধরা পড়ে গেছেন। এবার যেভাবে হোক পুরো ঘটনা টা ওনাকে মানেজ করতে হবে। উনি চোখ টা বন্ধ করে খাটের ওপর পড়ে থাকলেন আর হাপাতে লাগলেন। এদিকে মালতী দেবী মাটি থেকে সাড়ী টা তুলে কোনরকমে নিজের শরীর টাকে জড়িয়ে দৌড়ে দরজার কাছে চলে গেলেন। সুইচ বোর্ড এ হাত দিয়ে লাইট জ্বালাতেই ওনার মাথায় বাজ পড়ল। মালতী দেবী দেখলেন খাটের ওপর শুয়ে আছে মানব বাবু। উনি নিজের হুশে নেই, মুখ দিয়ে বিড়বিড় করে কিছু বলছেন। মালতী দেবী সঙ্গে সঙ্গে লাইট টা অফ করে দিয়ে পাশের ঘরে গিয়ে ঢুকলেন। ওখানে লাইট টা জ্বালিয়ে দেখেন মানব বাবুর জামা প্যান্ট পড়ে সুয়ে আছেন সুবীর বাবু। মালতী দেবী টলতে টলতে কোনরকমে দরজা টা লাগিয়ে সুবীর বাবুর পাশে গিয়ে বসলেন।
গভীর রাতের নিষিদ্ধ যৌনতা এখন ও মালতী দেবীর শরীরে বিদ্যমান। ওনার সারা মুখে মানব বাবুর লালা মেখে রয়েছে। উনি আর ও একবার সুবীর বাবুর শরীর তার দিকে তাকালেন। সমস্ত রাগ গিয়ে পড়ল সুবীর বাবুর ওপর। যে মানুষ নিজের বিবাহিত বউকে নিয়ে ভাবেনা তারচেয়ে বড় অপরাধ আর কি বা হতে পারে। উনি ভাবতে থাকলেন এমন কি হয়ে গেল যে সুবীর বাবু আর মানব বাবু নিজেদের জামা কাপড় চেঞ্জ করে নিলেন এমনকি শোয়ার ঘরটাই পালতে ফেললেন। মানব বাবুর নজর টা ওনার অতিরিক্ত গায়ে পড়ে কথা বলা অতিরিক্ত সহানুভুতি কোনটাই মালতী দেবীর কনকালেই পছন্দ ছিলনা। কিন্তু আজ যা হল টা ক্ষমার অযোগ্য। লজ্জা রাগ ও অপমানে মালতী দেবীর চোখ দিয়ে টপ টপ করে জল পরতে লাগলো। এর আগেও সুবীর বাবুর মদ্ধে এরকম অনেক কেয়ার লেস আচরন উনি দেখেছেন, কিন্তু দুদিনের অভিমান ই তার জন্য যথেষ্ট ছিল। কিন্তু আজ যে ঘটনা টা ঘটল তার জন্য নিজের স্বামী কে বড্ড বড় কাপুরুশ মনে হল মালতী দেবীর। উনি প্রথম থেকে একবার সমস্ত ঘটনাটা ভাবতে লাগলেন। কুয়ো পাড়ে উনি বাসন ধুচ্ছিলেন, সেই সময় ওরা দুজন ই এখানে এসে প্রবেশ করল। তারপর মানব বাবু বারান্দার লাইট টা অফ করলেন, কিছুক্ষন পর সুবীর বাবুর বারমুন্দা টা পড়ে ওদের শোয়ার ঘরে ধুকে গেলেন। এই পুরো তাই যে মানব বাবুর প্ল্যান মত হয়েছে টা বুঝতে আর কোন দ্বিধাই রইলনা মালতী দেবীর। হয়ত সুবীর বাবু কিছুই জানেন না কিছুই বোঝেন নি, তবুও একবার নিজের বিয়ে করা স্ত্রী কে ও তার সম্মান কে নিয়ে চিন্তা থাকবে না। মালতী দেবীর সমস্ত রাগ ই গিয়ে পড়ল সুবীর বাবুর ওপর। আর হয়ত এটাই চেয়েছিলেন মানব বাবু। এটাই তো ওনার চিরকালীন প্ল্যান, স্ত্রীর কাছে স্বামী কে ছোট কর, ব্যাস তারপর সুযোগ টা ওঠাও। পাশের ঘরে শুয়ে শুয়ে মানব বাবু ও নিজেকে শান্ত করার চেস্তা করছেন। আজ হাতের মুঠোয় স্বর্গ পেয়েও উনি টা হারিয়ে ফেলেছেন নিজের ই সামান্য কিছু ভুলের জন্য। উনি মনে মনে ঠিক করলেন কাল সকালে কোনোরকম অসংলগ্ন ব্যবহার করা জাবেনা। সুবীর বাবু ও মালতী দেবীর সাথে একদম স্বাভাবিক ব্যবহার করতে হবে যাতে ওদের মনে কোনোরকম সন্দেহ না হয়। মানব বাবু সুবীর বাবুকে ছোট থেকে চেনেন, উনি কখন ও বিশ্বাস ও করতে চাইবেন না যে মানব বাবু আজ রাতে এত বড় একটা নোংরা ঘটনা ঘটিয়েছেন। আর মালতী দেবী ও প্রচণ্ড রকম রক্ষণশীল উনিও এই ব্যপার টা কখনই নিজের স্বামীকে বলতে জাবেন না। যেভাবে হোক তিলোত্তমা, রূপসা ও সুবীর বাবুর অনুপস্থিতিতে ওনাকে মালতী দেবীর সাথে দুদিন থাকার সুযোগ টা নিতেই হবে। আর উনি মন থেকে এটা বিশ্বাস করেন যে নিষিদ্ধ উত্তেজনার স্বাদ আজ মালতী দেবী পেয়েছেন, তা ওনার শরীরে আগুন জ্বালিয়েছে আর এই আগুন খুব একটা সহজে নেভার নয়।
এদিকে রাজু ও সাইদুল এর ও চোখে ঘুম নেই। রাজু কালকের জন্য অনেক কিছু প্ল্যান করে রেখেছে। জানে অ্যাডমিসন নেওয়ার আগেই যেভাবে হোক তিলত্তমাকে পটাতেই হবে নয়ত আর সুযোগ পাওয়া যাবেনা। রাজু চোখ বন্ধ করে তিলত্তামার ঝুকে পরা বুকটার কথা একবার মনে করে। রাজুর চোয়াল শক্ত হয়ে যায়, ঠিক করে আর ও একবার মেসেজ করবে তিলোত্তমা কে।
রাজুঃ আমি পুরো ঘরটা ফুল দিয়ে সাজাবো। কাল একদম ভোর ভোর ঘুম থেকে উঠে আগে ফুল নিয়ে আসব। কাল আমার বাড়ীতে তারা আসছে। ইস যদি একটা ক্যামেরা থাকত ফটো তুলে রাখতাম। তুমি আসবে কিন্তু আমি নয়ত খুব কষ্ট পাবো আর ভাববো যে সত্যি গরিব বড়লোকে বন্ধুত্ব হয়না। গুড নাইট।
রাজুঃ বুঝলি রে সাইদুল, মনে হয় সালা কচি আমটা কাল ই চুষতে পারবো। একবার শুধু আমার ঘরটায় ঢুকতে দে, এমন ভাবে গুদের কাছে হাত বোলাবো যে নিজের থেকেই আমাকে ধরা দেবে। আরে দেখ শালি মেসেজ এর রিপ্লাই করেছে।
তিলত্তমাঃ এই তুমি আবার এরকম বলছ। আমি তারা ফারা কিছুই নই। আমি সামান্য মানুষ। আমি আসবই, কিন্তু কখন আসব ঠিক বলতে পারছিনা। জানত কাল ই আমায় যেতে হবে। বাবা ট্রেন এ যাবে না প্লেন এ যাবে ঠিক জানিনা। ট্রেন এ গেলে অনেক তারাতারি বেরতে হবে। তাই কাল বাড়ি ফিরে তোমায় সব জানাব।
রাজুঃ তুমি কখন ফিরবে বল আমি কি তোমায় নিতে যাব বাস স্ট্যান্ড এর কাছে?
তিলত্তমাঃ এই না একদম নয়। রূপসা আমার সাথে থাকবে। ও ভিশন ভয়ঙ্কর মেয়ে। ও তোমায় দেখলে কি যে হবে জানিনা। প্লিজ তুমি কিন্তু আসবে না। আমি বাড়ি পৌঁছে তোমায় মেসেজ করে দেব।
রাজুঃ আচ্ছা একটা কথার উত্তর দাও। রূপসা আর তুমি তো যমজ কিন্তু দুজনের মধ্যে এত বৈপরীত্য কেন রয়েছে।
তিলত্তমাঃ ওহ এটা আর বোল না। ও যা জেদি আর দুষ্টু মায়ের মাথা খারাপ হয়ে যায় ওকে নিয়ে। যাই হোক আমার খুব ঘুম পাচ্ছে আমি ঘুমিয়ে পরলাম তুমি ও শুয়ে পড়। গুড নাইট।
রাজুঃ বুঝলি সাইদুল। তোর মাল টা নাকি ভীষণ জেদি আর বদমাশ। তুলতে পারবি তো রে? নাকি নাম ডোবাবি?
সাইদুলঃ জানিনা ভাই, মেয়েবাজি করার অভ্যাস তো আমার নেই তোর আছে। তুই যা যা বলেছিস তা করার চেষ্টা করব। পটলে ভাল নয়ত দুধ দেওয়ার কাজটা গোল হোল আর কি।
রাজুঃ আরে ধুর বোকা এত চিন্তা করিস কেন। শোন রূপসাই হোক আর তিলোত্তমা, এই বয়সি মেয়েদের মধ্যে একটা পুরকি থাকে। বুঝছিস তো ব্যাস তোকে সেটাই কাজে লাগাতে হবে।
সাইদুলঃ সব ই তো বুঝলাম কিন্তু যদি ......
রাজুঃ আরে ধুর যদি কিন্তুর কি আছে। আমি বললাম তো সব ঠিক হবে, খালি প্ল্যান টা ভুলে যাস না এই আরকি। আর ভাই পটানোর পর একটু মাই টাই টিপতে দিবি তো রে।
সাইদুলঃ আরে ধুর রূপসার মধ্যে সেটা নেই যা মালতীর মধ্যে আছে আর কিছুটা তিলোত্তমার মধ্যে আছে।
রাজুঃ তুই এখনো মেয়ে চিনলি নারে। রূপসার বুকের খাঁজ আমি দেখেছি এক্কেবারে মায়ের মত। এই তো ১৮ হোল। একটু দাঁড়া। দেখবি মাকেও ছাপিয়ে যাচ্ছে। আমি কি তোর সাথে বেইমানি করব রে ভাই।
সাইদুলঃ ঠিক আছে ছার। এখন ঘুমিয়ে পড়ি কাল দেখা যাবে।


Reply


Forum Jump:

Users browsing this thread: 1 Guest(s)